Press "Enter" to skip to content

সুপ্রিম কোর্টে ধাক্কা খাওয়ার পর চাপে পড়ে এবার ধর্ণা তুলে নিলেন মমতা ব্যানার্জী! ধর্ণা ভাঙার পর করলেন এমন মন্তব্য…

মমতা বনাম CBI ইস্যুতে রবিবার সন্ধ্যে থেকে চলছে হাইভোল্টেজ ড্রামা যা নিয়ে লাগাতার আপডেট দিচ্ছে দেশের মিডিয়া। চিটফান্ড দুর্নীতি কাণ্ডে CBI এর তদন্ত নিয়ে মমতা যে বাঁধ প্রদান করেছে তা নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের দারস্থ হয়েছিল CBI, অন্যদিকে মমতা CBI তদন্ত আটকাতে এবং CBI এই হাত থেকে রাজীব কুমারকে বাঁচানোর জন্য ধর্ণায় বসে যায়। শুধু এই নয়, মমতার সাথে কিছু পুলিশ কর্তারাও ধর্ণায় বসে যায় যা নিয়ে রাজনৈতিক মহলে প্রশ্ন উঠতে শুরু করে। পুলিশ আধিকারিকরা কিভাবে রাজনৈতিক দলের চাটুকারিতা করে তাদের সাথে ধর্ণায় বসতে পারে তা নিয়ে প্রশ্ন তুলে CBI কর্তৃপক্ষ।

আজ আদালতে মমতা বনাম CBI এর লড়াইতে বড় রায় সামনে এসে যা রীতিমত চাপে ফেলায় মমতার সরকারকে। আদালত জানায় যে রাজীব কুমারকে CBI এর সামনে হাজিরা দিতেই হবে। কলকাতায় CBI রাজীব কুমারকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে গেলে সেখানে কলকাতা পুলিশকে কাজে লাগিয়ে CBI কে আটক করেছিল পুলিশ। তাই আদালত জানিয়েছে যে মেঘালয়ের শিলং এ CBI এর সামনে হাজির হতে হবে রাজীব কুমারকে।

CBI তদন্ত আটকানোর জন্য ধর্ণায় বসেছিলেন কিন্তু আদালতের রায়ের পর মমতার ধর্ণা যে বিফল হয়েছে তা বুঝতে কারোর বাকি নেই। যদিও আদালতের রায়কে নিজের জিত বলেই ইঙ্গিত প্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন আদালত নাকি তার পক্ষেই রায় দিয়েছেন এবং এটা তার নৈতিক জয়। আদালতের রায়ের পর মমতা ব্যানার্জীর ধর্ণা নিয়ে মিডিয়া প্রশ্ন তুললে উনি বলেন যে বাকি নেতাদের সাথে কথা বলে উনি সিধান্ত প্রকাশ করবেন।

এখন প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী, মমতা আজ ৩ দিনের মাথায় ধর্ণা তুলে নিয়েছেন। সুপ্রিম কোর্ট থেকে ঝটকা পাওয়া পর এখন ধর্ণা তুলে নিয়েছেন মমতা ব্যানার্জী। জানিয়ে দি, মমতার ধর্ণার দিকে ধেয়ে আসে চিটফান্ডে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষজন। মমতা ব্যানার্জীর ধর্ণাকে গান্ধী পরিবার, লালু পরিবার, মুলায়ম সিং পরিবার সমর্থন করলেও বিজেপি এই ধর্ণাকে রাজ্যের লজ্জা বলে উল্লেখ করেছিল। এখন মমতা তার ধর্ণা তুলে নিয়েছেন এবং বিরোধী অনুরোধেই নাকি এই ধর্ণা তুলেছেন বলে জানিয়েছেন মমতা ব্যানার্জী। এটাকে গণতন্ত্রের জয় বলে উল্লেখ করেন উনি। মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী বলেছেন এবার তিনি ে নয়, দিল্লীতে ধর্ণায় বসবেন।

9 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.