Press "Enter" to skip to content

বড়মাকে অপমান করার জন্য সময় মত অভিষেককে জবাব দেওয়ার ঘোষণা মতুয়া সঙ্ঘের

গতকাল রাত ৮ঃ৫২ মিনিট নাগাদ পরলোক গমন করেছেন মতুয়া সঙ্ঘের বড়মা বীণাপাণি দেবী। গতকাল সকাল আটটা নাগাদ এসএসকেএম এ অসুস্থতার কারণে ভর্তি হন তিনি। আর ১২ ঘন্টা পরেই ওনার জীবনাবসান ঘটে। ওনার প্রয়াণের পর শোকের ছায়া মতুয়া সঙ্ঘে।

ওনার শেষকৃত্য রাজকীয় ভাবে করার নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী। একদা এই মতুয়া সঙ্ঘের কারণেই বিপুল জনমত নিয়ে রাজ্যে ক্ষমতায় এসেছিলেন তৃণমূল দল। ২০০৭-০৮ সালে বড়মা বীণাপাণি দেবীর কথা মতই গোটা মতুয়া সঙ্ঘ তৃনমূলের দিকে ঝুকে যায়।

তবে এবার মতুয়া সঙ্ঘের একটা বড় অংশ বিজেপির দিকে ঝুকেছে। কয়েকদিন আগে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বনগাঁর ঠাকুর নগরে সভা করার আগে বড়মার থেকে আশীর্বাদ ও নেন। তবে বড়মার মৃত্যুর পর ঠাকুর পরিবারের এক সদস্য এটা পূর্ব পরিকল্পিত খুন বলে আখ্যা দেন।

ঠাকুর পরিবারের সদস্য শান্তনু ঠাকুর বড়মার মৃত্যুর পিছনে তৃণমূলের হাত আছে বলে অভিযোগ করেন। তিনি বলেন, বড়মা বেঁচে থাকলে এবার তৃণমূলের গদি আর বাঁচত না। তাই ওনাকে খুন করা হয়েছে। তবে বড়মার মৃত্যুর পর, বরমাকে অপমান করার জন্য গর্জে উঠেছে মতুয়া মহাসঙ্ঘ।

মতুয়া মহাসঙ্ঘ অনুযায়ী তৃণমূলের সাংসদ অভিষেক ব্যানার্জী বড়মার মৃত্যুর পর ওনাকে শেষ দেখা না দেখে শুধু ফুলের স্তবক পাঠিয়ে নিয়ে দ্বায়িত্ব সেরেছেন। এটা বড়মার অপমান। তাই এই অপমানের কড়া জবাব ঠিক সময়মত দেবে মতুয়া সঙ্ঘ।

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.

you're currently offline