মিশন 2019 : বাংলা জয়ের লক্ষ্যে মমতাকে চক্রবুহ্যতে ফাঁসানোর প্ল্যান বানালেন অমিত শাহ

বিজেপি ইতিমধ্যেই ২০১৯ লোকসভা নির্বাচন নিয়ে জোরকদমে প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছে। তাই আগেরবারের লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি যে যে রাজ্যে খুব একটা ভালো করতে পারেনি সেই সকল রাজ্যগুলি কে এবার বেশি করে গুরুত্ব দিচ্ছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ জি। তাই বিজেপির সেই লিষ্টে পশ্চিমবঙ্গকে বিশেষভাবে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। সেই জন্যই এবার তৃনমূল নেত্রী মমতা ব্যানার্জিকে কড়া টক্কর দেওয়ার জন্য পশ্চিমবঙ্গতে এক নুতন চাল দিতে প্রস্তুত গেরুয়া শিবির। তাই এবার লোকসভা নির্বাচনে আমাদের রাজ্য থেকে অনেক ভাগ টিকিট দেওয়া হবে মুসলিমদের এমনটাই জানা গিয়েছে বিজেপি সূত্রে। আসলে বিজেপি বুঝতে পেরেছে পশ্চিমবঙ্গের হিন্দুরা এক নয়, হিন্দুরা এক হয়ে কখনোই বিজেপিকে জেতাতে পারবে না, তাই এবার বিজেপি রাজনীতির প্ল্যান খাটাতে শুরু করেছে।

কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে অনেক পদক্ষেপ নেওয়ার পর পশ্চিমবঙ্গে এই মুহুত্তে বাংলাদেশি মুসলিম অনুপ্রবেশ বন্ধ করা গিয়েছে। ২০১১ সালের জনগণনা অনুসারে ২৭ % মুসলিম বসবাস করে এই রাজ্যে যেভোটের উপর নির্ভর করে তৃনমূল এত দিন এরাজ্যে জয়লাভ করেছে। তাই সেই সংখ্যা থেকে যদি কিছু পরিমান বিজেপিকে কাজে লাগায় তাহলে এই রাজ্যে একদিকে যেমন তৃনমূলের ভোট কমবে সেই রকমই বিজেপির ভোটব্যাংক বাড়বে। তাই বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব ঠিক করেছেন যে এবারের লোকসভা ভোটে মুসলিম বহুল এলাকায় মুসলিম ক্যান্ডিডেট দাঁড় করিয়ে মমতাকে জ্বব্ধ করা হবে।

Bjp – বিজেপি প্রচার

আগের বার অর্থাৎ ২০১৪ সালে বীরভূম জেলায় ঠাকুরের পতাকা উত্তোলনের পর সেখানে কিছুটা বিরোধ দেখা গিয়েছিল মুসলিম সম্প্রদায়ভুক্ত মানুষের মধ্যে। তাই এবার বীরভূম জেলার মুসলিমবহুল এলাকাগুলি থেকে মুসলিম ক্যান্ডিডেট পদপ্রার্থী হিসাবে দাঁড় করিয়ে বিজেপি এটা প্রমান করে দিতে চান যে, বিজেপি মুসলিম বিরোধী নয়। আগের বার দুজন মুসলিম প্রার্থী মোহামেদ আলম ও বাদশাহ আলম এখান থেকে ভোটে দাঁড়িয়েছিল তাদের প্রাপ্ত ভোট ছিল যথাক্রমে ৯৫ হাজার এবং ৮৬ হাজার। তাই এবার বিজেপি মুসলিম প্রার্থী সংখ্যা দুই থেকে বাড়িয়ে আরও বেশি করবেন বলে ঠিক করেছে।

বিজেপি এবার লোকসভা ভোটে বেশি করে টার্গেট করবে মুর্শিদাবাদ এবং উত্তর ও দক্ষিন দিনাজপুর কে। সংসদ শমিক ভট্টাচার্য এই দিন বলেন যে এই বাংলার মাটিতে জন্ম নিয়েছেন বিখ্যাত কবি কাজি নজরুল ইসলাম, সৈয়দ মুস্তাফা সিরাজ এর মতন মুসলিম ব্যাক্তিত্ব। আমরা উনাদের ভক্তি করি, সম্মান করি কারন উনাদের জন্য আজ বাংলার নাম দেশ তথা সমগ্র বিশ্বের কাছে উজ্জ্বল হয়েছে। কিন্তু যারা অবৈধ ভাবে অন্যদেশ থেকে আমাদের রাজ্যে অনুপ্রবেশ করেছে এবং বিভিন্ন অসামাজিক কাজকর্ম করে বেড়াচ্ছে আমরা শুধু তাদের বিরুদ্ধে।

Bjp – বিজেপি

বিজেপি সূত্রে জানানো হয়েছে যে, রাজ্যের সংখ্যালঘুদের জন্য বিজেপি একটা মেগা র‍্যালি করবে বিজেপির রথযাত্রা অনুষ্ঠানের পরই। সেই সাথে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ বাবু জানিয়েছেন যে, আগের তুলনায় এখন আমাদের সভাতে মুসলিমদের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়ে। এখন অনেক মুসলিম দেশের স্বার্থে বিজেপির দিকে ঢোলে পড়ছে কারন এখন আমাদের রাজ্যে সবাই তৃনমূলের বিকল্প হিসাবে বিজেপি কে চাইছেন। তিনি আরও জানিয়েছেন যে মূলত মুসলিম সম্প্রদায়ভুক্ত যে এলাকা গুলি রয়েছে সেসব এলাকাতেও বিজেপির শক্তি বহুগুন বেড়েছে।

এছাড়াও নাগরিকত্ব সংশোধন বিল নিয়ে রাজ্যের বহু মুসলিম কে যে ভুল বোঝানো হয়েছে সেটাও এইদিন স্পষ্ট করে দেওয়া হয়। বিজেপি সূত্রে বলা হয়েছে যে, যেসকল মুসলিমরা বাংলাদেশ থেকে ভারতে অবৈধভাবে প্রবেশ করেছে এই বিলের মাধ্যমে শুধুমাত্র তাদের কেই চিহ্নিত করা হবে, এতে ভারতীয় মুসলিমদের বিন্দুমাত্র চিন্তার কারন নেই। এছাড়াও মুসলিম মহিলারা যে তিন তালাক বিল নিয়ে বেশ খুশি তারও একটা ভালো এফেক্ট এবারের লোকসভা ভোটে পড়বে বলে মনে করছেন বিজেপি শিবির। আলী হোসেন যিনি বিজেপির সংখ্যালঘু নেতা তিনি বলেন যে এখন অনেক মুসলিম বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন তাই এই মুহুত্তে সেই সংখ্যা ২ লক্ষ্যতে দাঁড়িয়েছে যা আগে ছিল ৫০,০০০ মাত্র।

এর ফলে সহজেই বোঝা যাচ্ছে যে, এবার লোকসভা ভোটে পশ্চিমবঙ্গতে মনতাকে সব দিক দিয়ে জ্বব্ধ করার প্লান তৈরি করে ফেলেছে বিজেপি। তাই এবার যে মমতার বিদায় ঘন্টা বেজে গিয়েছে সেটাই বলাই যায়।
#অগ্নিপুত্র

you're currently offline

Open

Close