Press "Enter" to skip to content

লালকেল্লা থেকে ভাষণ দিতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী ভেঙে দিলেন নিজের রেকর্ড। দেখে আপনিও বলবেন হর হর মোদী।

আজ পুরো দেশ ৭২ তম স্বাধীনতা দিবস পালন করছে। পুরো দেশ আজ দেশভক্তিতে ডুবে রয়েছে।প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী লাল কেল্লায় ধজ্জা আরোহণ করেন এবং ত্রিরঙ্গকে সেলামি দেন। এরপর প্রধানমন্ত্রী লালকেল্লা থেকে জোরদার ভাষণ দেন। এমনিতে তো লালকেল্লা থেকে দেওয়া প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ স্মরণীয় হয়ে থাকে কিন্তু এবার প্রধানমন্ত্রী নিজের রেকর্ড নিজেই ভেঙে দিলেন। আপনাদের জানিয়ে দি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কার্যকালের এটা শেষ ভাষণ ছিল।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী দেশকে সম্বোধিত করে নিজের রেভর্ড নিজেরাই ভেঙে দেন। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ৭২ তম স্বাধীনতা দিবসের এটা তৃতীয় সবথেকে লম্বা ভাষণ দিয়েছেন। ত্রিরঙ্গা আরোহনের পর প্রধানমন্ত্রী ৭.৩৩ মিনিটে ভাষণ শুরু করেন এবং যা ৮.৫৫ মিনিটে শেষ হয়। প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ টানা ৮২ মিনিট চলে অন্যদিকে আগের বছর অর্থাৎ ২০১৭ তে প্রধানমন্ত্রী ৫৪ মিনিটের সবথেকে ছোট ভাষণ দেন।

আপনাদের আরো জানিয়ে দি, যখন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ১৫ আগস্ট ২০১৪ তে লালকেল্লা থেকে প্রথম ভাষণ দিয়েছিলেন তখন সেটা ৬৫ মিনিটের ছিল। ২০১৫ তে প্রধানমন্ত্রী ৮৬ মিনিটের ভাষণ দিয়েছিলেন। সাল ২০১৬ তে প্রধানমন্ত্রী দেড় ঘন্টার ভাষণ দিয়েছিলেন। লালকেল্লা থেকে সম্বোধন করে প্রধানমন্ত্রী জন আরোগ্য অভিযান, দেশের আর্থিকব্যাবস্থার উন্নতি, মুদ্রা যোজনা ও স্বচ্ছ ভারত মিশনের ভালো প্রভাব সম্পর্কে বক্তৃতা দেন। এছাড়াও প্রধানমন্ত্রী জম্মুকাশ্মীর, পূর্বউত্তর, মাওবাদী, তিন তালাক বিরোধী বিধেয়কের মতো বড়ো ইস্যুতে নিজের বক্তব্য পেশ করেন।

প্রধানমন্ত্রী উনার ভাষণে সরকারের উপলদ্ধি সম্পর্কে বলেন, নতুন যোজনা সম্পর্কে জানান, সকারের সফলতা ও বিফলতা জনগণের কাছে রাখেন। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীজির ভাষণ শোনার জন্য দেশ বিদেশের মানুষ ভারতবর্ষের দিকে মুখ চেয়ে থাকেন।প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে বিশ্বের একজন বড়ো বক্তা হিসেবেও ধরা হয়। তবে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী দেশকে সম্বোধিত করে ৯৬ মিনিটের ভাষণ দিয়েছেন।