Press "Enter" to skip to content

সুষমা স্বরাজকে ধমক দিলেন প্ৰধানমন্ত্রী মোদী! পাকিস্থানের সাথে কোনো আলোচনা বা বৈঠক চলবে না জানালেন মোদীজি।

ের সুনাম দেশজুড়ে থাকলেও মোদী সরকারের এক মন্ত্রীর বিরুদ্ধে বরাবরই পাকিস্থান প্রীতি ও বিজেপির সাথে ষড়যন্ত্র করার অভিযোগ উঠেছে। আসলে একদিকে যখন মোদী সরকার পাকিস্থানের সাথে কড়াভাবে ব্যাবহার করে এবং পাকিস্থানে যোগ্য জবাব দেয় তখন সুষমা স্বরাজ কখনো পাকিস্থানিদের ভিসা দিয়ে তো কখনো ভালোবাসা দেখিয়ে নরমভাব প্রদর্শন করেন। তবে উল্ল্যেখ বিষয় এই যে, সুষমা স্বরাজের বিরুদ্ধে কোনো বিরোধী নেতারা কখনো প্রশ্ন তোলেনি বরং মোদী সমর্থকরা সুষমা স্বরাজকে বিজেপির ঘর শত্রু বিভীষণ বলে দাবি করে। জানিয়ে দি মোদী সরকারের ও অন্যান মন্ত্রীদের থেকে সুষমা স্বরাজের তালমেল না খাওয়ার ব্যাপার এই নতুন নয়,বহু পুরোনো রাজনীতি থেকেই এই ছবি দেখতে পাওয়া যায়।

গতকাল বিদেশ মন্ত্রী সুষমা স্বরাজ ঘোষণা করেছিলেন , আমেরিকায় পাকিস্থানের বিদেশমন্ত্রী শাহ মামুদের সাথে ভালো সম্পর্কের জন্য কথা বলবে। বলা হচ্ছে, সুষমা এটা মোদী সরকারকে বদনাম করার জন্যই করেছিল। কারণ সম্প্রতি জঙ্গির দেশ পাকিস্থান আমাদের দেশের এক জোয়ানের মাথা কেটে নিয়ে গেছে যা নিয়ে দেশের মানুষের মধ্যে ক্ষোপ রয়েছে। এই অবস্থায় যদি পাকিস্থানের সাথে সুসম্পর্ক করার কথা বলা হয় তাহলে জনগণ মোদীকে ও মোদী সরকারকে গালি গালাজ করবে এটা জেনেই সুষমা স্বরাজ এমন অর্থহীন ঘোষণা করেছিলেন।

তবে মোদী আরো একবার দেখিয়ে দিয়েছেন যে সরকার চালানোর আসল নিয়ন্ত্রণ কার হাতে রয়েছে। সুষমা স্বরাজ ঘোষণা করেছিলেন যে পাকিস্থানের সাথে বার্তা করা হবে যেখানে কাশ্মীর ইস্যুতেও কথা বলা হবে। পাওয়া যাচ্ছে প্রধানমন্ত্রী মোদী তার ক্ষমতার ব্যাবহার করে পাকিস্থানের সাথে যে বার্তা হওয়ার কথা ছিল তা বাতিল করে দেন এবং সুষমাকে দেখিয়ে দেন যে সরকার কার। এবার ভারতের বিদেশমন্ত্রী, পাকিস্থানের প্রধানমন্ত্রীর সাথে বার্তা তো দূর , দেখা পর্যন্ত করতে পারবেন না।

মোদী দেশের হিসেবে হস্তক্ষেপ করে পুরো মিটিংকে বাতিল করে দিয়েছেন। কোনো রকম বার্তা বা সাক্ষাত হবে না জানিয়ে সুষমাকে ধমক দেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। অন্যদিকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী BSF কে জানিয়েছে তারা যেকোন পর্যায়ে গিয়ে, কাউকে তোয়াক্কা না করে পদক্ষেপ নিতে পারে।কারোর কাছে কোনো অনুমতি নেওয়ার দরকার নেই যা পদক্ষপে নেওয়ার তারা নিতে পারে পাকিস্থানের বিরুদ্ধে।