Press "Enter" to skip to content

মোদী সরকারের কূটনৈতিক প্রভাবে ভারত পেল এক বড়ো সাফল্য।

সাংসদে অবিশ্বাস প্রস্তাবে বাজিমাত করার পর মোদী সরকারের আরো একটা বড় সফলতা সামনে আসছে। এই সফলতা ের একটা খবর। আসলে এশিয়ার একটা ছোট দেশ মালদ্বীপকে নিয়ে চীন অনেক কূটনৈতিক চাল খেলে আসছিল। আসলে চীনের উদেশ্য ছিল যে করেই হোক মালদ্বীপকে চীনের বিরুদ্ধে লেলিয়ে দেওয়া। তবে মোদী সরকারের কূটনীতিক চালের প্রভাব এবার দেখা যেতে শুরু করেছে। মোদী সরকারের কূটনৈতিক প্রভাব যেভাবে বিশ্ব স্তরের মধ্যে প্রভাব ফেলছে তাতে আপনাকেও মোদীজির সুনাম করতে হবে। কারণ মালদ্বীপ নিয়ে এবার যে খবর সামনে আসছে তা ভারতের জন্য অনেক বড়ো সফলতা। আপনাদের জানিয়ে রাখি কিছুমাস আগে মালদ্বীপ ভারতকে জানিয়েছিল যে ভারত যেন তাদের দুই ALH হেলিকপ্টার ও ৫০ কর্মীকে মালদ্বীপ থেকে সরিয়ে নেয়। ভারত সেইমতো দুই হেলিকপ্টার ও ৫০ কর্মীকে সরিয়ে আনার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিল।

কিন্তু এবার মালদ্বীপ তাদের মত পরিবর্তন করে জানিয়েছে যে ভারতের তাদের হেলিকপ্টার ও কর্মীদের মালদ্বীপে রাখতে পারে। এর অর্থ এই যে মালদ্বীপ সরকার ভারতের দুই হেলিকপ্টার ও কর্মীদের মালদ্বীপে রাখতে রাজি হয়েছে। মালদ্বীপের এই পদক্ষেপের পর দুই দেশের সম্পর্ক খুব ভালো হয়ে উঠছে যা ভারত সরকারের জন্য একটা বড়ো সাফল্য। আপনাদের আরো জানিয়ে দি, মালদ্বীপ সুমুদ্র তীরে অবস্থিত একটা দেশ, যার সামুদ্রিক সুরক্ষা ভারতীয় নৌসেনা করছে কিন্তু চীন চাইছিল যে ভারতের হাত থেকে যেভাবেই হোক মালদ্বীপ বেরিয়ে যাক।

আর আন্তর্জাতিক পরিস্থিতি দেখে সকলেই মনে করেছিল যে মালদ্বীপ ভারতের হাত থেকে চলে যাবে এবং সুমদ্রে চীনের দাপট আরো একবার বেড়ে যাবে কিন্তু মোদী সরকার তা হতে দেয়নি। মালদ্বীপ যেভাবে চীনের থেকে মুখ ঘুরিয়ে ভারতের দিকে তাকিয়েছে তাতে মোদী সরকারের জন্য একটা অনেক বড় সাফল্য বলেই মনে করা হচ্ছে।রাজনৈতিক ব্যাপার হোক বা পরিবেশজনিত কোনো সমস্যা সব ক্ষেত্রেই মোদী সরকারের আমলে ভারত মালদ্বীপকে সাহায্য করেছে যার ফলে আজ হাতেনাতে মিলছে। কিছুমাস আগেই যখন মালদ্বীপে পানীয় জলের সমস্যা দেখা দিয়েছিল তখন ভারত মালদ্বীপের জন্য জলের ব্যাবস্থা করেছিল।

আসলে মোদী সরকার আসার পর থেকে যেভাবে ভারতের সাথে অন্যান্য দেশের সম্পর্ক ভালো হচ্ছে তাতে শত্রুদেশগুলির রাতের ঘুম উড়ে গিয়েছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বিদেশ ভ্রমণের মাধ্যমে সমস্ত দেশের সাথে সম্পর্ক ভালো করতে নেমে পড়েছে। এখন আপনারা জিজ্ঞাসা করতে পারেন যে এটা করে ভারতের কি লাভ হচ্ছে। আপনাদের জানিয়েদি আগে চীন যেসব ছোট প্রতিবেশী দেশদের কুদৃষ্টিতে দেখতো সেই দেশগুলোকে ভারতের বিরুদ্ধে উস্কে দিয়ে কাজে লাগাতে। কিন্তু এখন মোদী সরকার আসার পর ভারত সেই দেশগুলিকে নিজের পক্ষে করে নিয়েছে। নেপাল,ভুটান,মায়ানমার সেই দেশগুলির মধ্যে ছিল। আর এখন সেই লিস্টে মালদ্বীপ যোগ হলো।