Press "Enter" to skip to content

রাম মন্দিরের ভিত্তি স্থাপনের জন্য সোনার ইট দান করবেন বাবরের বংশধর হাবিবুদ্দিন তুসি।

শেষ মুঘল বাদশাহ বাহাদুর শাহ জফর এর বংশধর হাবিবুদ্দিন তুসি (habibuddin tusi) অযোধ্যায় রাম মন্দিরের নির্মাণের ইচ্ছে প্রকাশ করেন। তুসি বলেন, অযোধ্যায় রাম মন্দিরের (Ram Mandir) নির্মাণের ভিত্তি স্থাপনের জন্য ওনার পরিবার সোনার ইট দেবেন। কিছুদিন আগেই তুসি সুপ্রিম কোর্টে একটি আবেদন দাখিল করে অযোধ্যায় (Ayodhya) রাম মন্দির মামলায় নিজেকে মধ্যস্থতা কমিটিতে রাখার দাবি করেন। যদিও সুপ্রিম কোর্ট ওনার আবেদন স্বীকার করেনি।

ইংরেজি সংবাদ মাধ্যম টাইমস অফ ইন্ডিয়ায় দেওয়া একটি ইন্টারভিউতে তুসি দাবি করে বলেন, রাম জন্মভূমি নিয়ে বিবাদ চলছে ঠিকই, কিন্তু ওই জমির মালিকানার কাগজপত্র কোন পক্ষের কাছেই নেই। আর এই জন্য উনি মুঘল বংশের বংশধর হওয়ার সুবাদে আদালতে নিজের রায় পেশ করতে চান। উনি বলেন, আমি শুধু আদালতের সামনে নিজের বিচার পেশ করতে চাই। উনি আবেদন করে বলেন, মাত্র একবার আদালত আমার কথা শুনুক।

তুসি বলেন, ১৫২৯ খ্রিষ্টাব্দে মুঘল শাসক বাবর নিজের সেনাদের নামাজ পড়ার জন্য বাবরি মসজিদের নির্মাণ করেছিল। ওই যায়গা শুধু সেনাদের নামাজ পড়ার জন্য ছিল, সেখানে আর কাউকে নামাজ পড়ার অনুমতি দেওয়া হত না। যদিও উনি এর আগে ওই যায়গায় কি ছিল, সেটার প্রশ্ন এড়িয়ে যান। কিন্তু উনি বলেন, যদি হিন্দুরা ওই যায়গাকে ভগবান রামের জন্মস্থল মেনে সেই যায়গার উপর ভক্তি রাখে, তাহলে আমি একজন প্রকৃত মুসলিম হয়ে তাঁদের ভাবনার সন্মান করব।

জমির মালিকানা হকের কাগজ নিয়ে ওনাকে প্রশ্ন করা হলে উনি বলেন, ওনার কাছেও ওই যায়গার মালিকানার কাগজপত্র নেই, কিন্তু মুঘল বংশের উত্তরাধিকারি হওয়ার অধিকারে ওনাকে ওই জমির মালিক বলা যেতে পারে। উনি বলেন, আমাকে এই জমির মালিকানা দিলে, আমি ওই জমি রাম মন্দির বানানোর জন্য দান করে দেবো।

you're currently offline