Press "Enter" to skip to content

বিজেপির প্রচারে বেরিয়ে আরো একবার তৃণমূলকে তীব্র ভাষায় আক্রমণ করলেন মুকুল রায়। বললেন…

তৃণমূলের দুর্নীতি, তোষণ ও সিন্ডিকেট থেকে অতিষ্ঠ হয়ে বেরিয়ে এসে বিজেপিতে যোগ দান করেছিলেন । বিজেপিতে যোগ দ
দান করেই একের পর এক তথ্য ফাঁস করে তৃণমূলকে চাপে ফেলেছেন হেভিওয়েট নেতা রায়। সেই পুরোনো রায় কে আবার পাওয়া গেল চেনা মেজাজে। এই দিন শিলিগুড়িতে একটি জনসভাতে অংশ নিতে গিয়েছিলেন রায়। সেই জনসভায় তিনি তৃনমূলের বিরুদ্ধে সুর চড়ান। তিনি সেই জনসভায় বলেন যে, এ রাজ্যে বালি খাদান, জমি, পাথর খাদান, কয়লা-সহ সমস্তরকম মাফিয়াচক্রের স্রষ্টা তৃণমূল। তৃণমূল আশ্রিত গুন্ডাবাহিনীর দাড়ায় হচ্ছে সমস্তরকম মাফিয়ারাজ। এই নেতা বলেন যে, রাজ্যে সন্ত্রাসবাদের দায় এড়িয়ে যেতে পারেন না মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই সাথে তিনি দাবি করেন যে, তৃণমূলকে তাদের এই দুর্নিতিমূলক কাজকর্মের মূল্য চোকাতে হবে।

সম্প্রতি রায় বিজেপির প্রচারে যান। সেখানে গিয়ে তিনি দার্জিলিং এ বিজেপি দলের জেলাস্তরের নেতাদের সাথে বৈঠক করেন। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন অন্যতম জেলা সম্পাদক গনেশ দেবনাথ, জেলা সভাপতি অভিজিৎ রায়চৌধরী-সহ বিজেপির শীর্ষ নেতারা। তাদের সাথে সেই দিন মূলত দার্জিলিং জেলায় দলের সাংগঠনিক শক্তি বাড়ানোর ব্যাপারে কথা হয় তার। সেই সাথে পঞ্চায়েত ভোটে রাজ্যজুড়ে যেভাবে সন্ত্রাসবাদ চালানো হয়েছে শাসক দলের আশ্রিত গুন্ডাবাহিনীর দারা তারও চরম নিন্দা করেন বিজেপির এই নেতা। সেই সাথে তিনি বলেন যে, পঞ্চায়েত ভোটের মতন সন্ত্রাসবাদ এই রাজ্যে আর ২য় বার হবে না।

কারন ২০১৯ লোকসভা ভোটে সুরক্ষার দায়িত্বে থাকবেন কেন্দ্রবাহিনী। সেই সাথে তিনি আশাবাদী যে, আসন্ন লোকসভা ভোটে এই রাজ্য থেকে বিজেপি পাবে ২২ টি আসন।অমিত শাহ্‌ রাজ্যে এসে তৃনমূলের সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে সুর চড়িয়েছিলেন। সেই সাথে তৃনমূলের দুর্নিতি রাজের বিরুদ্ধে মুখ খোলেন খোদ প্রধানমন্ত্রীও। তাদের সাথে একই সুরে সুর মেলালেন প্রপ্তন তৃনমূলের ২য় পজিশন ধারি নেতা মুকুল রায়।

বিজেপির ক্ষমতাশালী নেতা মুকুল রায় বলেন যে, এই রাজ্যে সমস্ত মাফিয়ারাজ সুরু হয়েছে তৃনমূলের আমলে। বিজেপি নেতা মুকুল রায় রাজ্যের এই অবস্থার জন্য দায়ী করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। শুধু এখানেই থেমে যান নি, তিনি আরও বলেন যে, এনআরসি বা নাগরিকপঞ্জি নিয়ে মিথ্যাচার চালাচ্ছেন শাসক দল। তারা রাজ্যের মানুষের মধ্যে বিভ্রান্তির সৃস্টি করছে। এই দায় তৃনমূল কেই নিতে হবে বলে তিনি দাবি করেন।
#অগ্নিপুত্র