Press "Enter" to skip to content

বাবার কসাই খানাতে গো-হত্যা দেখে ছেলে এখন গো-পালন করেন! মোদী সরকার দিল পদ্মশ্রী উপহার।

মহারাষ্ট্রের এক ছোট গ্রামের বাসিন্দা শেখ সাবির মামু সেলিব্রেটি হয়ে গেলেন যখন ২৫ শে জানুয়ারি রাতে পদ্ম পুরস্কারের সুচিতে উনার নাম আসে। গো- সেবা করার জন্য উনাকে দ্বারা সম্মানিত করা হয়েছে। সাবির এখনো অবধি বুঝতে পারছেন না যে উনি কি পুরস্কার পেয়েছেন। উনি আগে কোনোদিন এই পুরস্কারের ব্যাপারে শোনেননি। উনি সারাজীবন শুধু গো- সেবা করে গিয়েছেন। সাবির মামুর সাথে সাথে উনার ছেলে বউমারাও গো-সেবা করেন। উনি প্রায় ৫০ বছর ধরে এই গো-সেবার কাজ করছেন। এর জন্য উনি ৪০ একর জমির উপর কোনো চাষবাস করেন না। শুধু জমিতে গো-খাদ্য উৎপাদন করেন এবং সেটা দিয়ে গো-সেবা করেন।

সাবির বলেন যে, উনার বাবার জবাই খানা ছিল। ছোট বয়সে সেখানে গো-হত্যা দেখার পর উনার উপর খুব গভীর প্রভাব পড়ে। গাইকে ওইভাবে কাটতে দেখে উনি খুব কষ্ট পেতেন। এরপর উনি তার বাবাকে জবাই খানা বন্ধ করতে বলেন এবং নিজে ১০ গাই এনে পালন পোষণ করতে শুরু করেন। এরপর থেকে এই ৫০ বছরে উনার কাছে ১৭৬ টি গাই ও বলদ রয়েছে যেগুলির পালন উনি নিজে করেন। একইসাথে গো-বংশকে খাওয়ানোর জন্য উনি নিজের ৪০ একর জমিতে চাষ করেন।

সাবির তার এলাকায় সাবির মামু নামে পরিচিত। এলাকায় যখনই কোনো গাই বাচ্চা জন্ম দেয় তখনই সাবির মামুকে ডাকা হয় পরামর্শ নেওয়ার জন্য। জানিয়ে দি, সাবির মামু কোন গরীব ব্যাক্তি নন। গো-সেবার উপর ভিত্তি করে উনি নিজের ঘর চালান এবং দুধ, গোবর বিক্রি করে মাসে ৬০-৭০ হাজার টাকা আয় করেন। উনি যদি কখনো কোনো বলদ বিক্রি করেন তাহলে ক্রেতার কাছে লিখিয়ে নেন যে তিনি এই বলদকে কোনোভাবেই জবাই খানায় দেবেন না। এটাও লিখিয়ে নেন, যদি বলদ কোনোভাবে অসুস্থ বা বয়স্ক হয় তবে তাকে আবার ওই দামে কিনে নেবেন। অর্থাৎ নিজের দ্বারা পালিত কোনো গো-বংশকে কাটতে দেবনে না এই পন নিয়ে সেবা কাজ করেন সাবির মামু।

আজকের দিনে দাঁড়িয়ে সাবির মামুর কাছে ১৭৫ এর বেশি গাই,বলদ রয়েছে। উনি তার সমস্থ সময় এই গো-বংশের সেবা করার জন্য লাগিয়ে দেন। যখন সরকারি আধিকারিকরা পদ্ম পুরস্কারের খবর নিয়ে উনার বাড়ি পৌঁছাবে তখন উনি গাই নিয়ে মাঠে বেরিয়ে ছিলেন। উনি ফোন ব্যাবহার করেন না তাই সরকারি আধিকারিকদের অপেক্ষা করতে হয়েছিল। সবির বলেছেন কি পুরস্কার পেয়েছি জানি না তবে আমি পুরস্কারের জন্য কোনো কিছু করিনি।

সাবিরের ছেলে বৌমারা জানিয়েছেন যে তারাও তাদের বাবর দেখানো পথেই চলবে। গো-সেবাতেই শান্তি আছে এমনটাই বলেন সাবির। তার পরবর্তী পীড়িরাও এই ভাবে গো-সেবা করে যাবে।

10 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.