Press "Enter" to skip to content

লালকেল্লায় জাতীয় পতাকা উত্তোলন করতে গিয়ে কেঁদে ফেললেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ! কারণ আপনাকেও গর্বিত করবে।

বলা হয় এইরকম ব্যাক্তিকে কেউ ভয় দেখিয়ে রাখতে পারে না যে ব্যাক্তির মনের ভিতর দেশপ্রেম থাকে, দেশের জন্য কাজ করার ইচ্ছা থাকে। কিন্তু বড়ো বড়ো দেশপ্রেমিকরা ভাবুক হয়ে পড়ে যখন দেশের সাথে জুড়ে থাকা ইতিহাসকে সামনে নিয়ে আসা হয়। আজ আমি আপনাদের কে এমনই এক দেশভক্ত ব্যাক্তির কথা বলব যার ব্যাপারে জানলে সত্যি আপনিও অবাক না হয়ে থাকতে পারবেন না।আপনাদেরই জানিয়ে রাখছি যে, আমাদের দেশের প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদীজিও আবেগপ্রবন হয়ে পড়েন এবং কখন কখন আবেগের ফলে কেঁদে ফেলেন উনি। আসুন আপনারা এই ব্যাপারে আরও ভালোভাবে বিস্তারিত জেনে নিন।

আরো পড়ুন – জারি হলো বিশ্বের সবথেকে বেশি মুসলিম জনসংখ্যাবিশিষ্ট দেশের তালিকা! ভারতের স্থান চমকে দেওয়ার মতো।

আপনাদের জানিয়ে রাখি যে, একটা বড়ো জনসভায় প্রধানমন্ত্রী কেঁদে ফেলেন। উনার মত একজন মানুষের চোখ দিয়ে কয়েক ফোটা চোখের জল বেরিয়ে আসে সকলের সামনে। আসলে, দুদিন আগে নেতাজীর তৈরি করা আজাদ হিন্দ ফৌজের ৭৫ বছর পূর্ন হল সেই জন্য মোদীজি বিশেষ ভাবে সম্মানিত করেছেন আজাদ হিন্দ ফৌজ কে। তাদের সম্মান জানিয়ে একটা বড়ো ইতিহাসকে সবার সামনে প্রকাশ করে লাল কেল্লায় প্রধানমন্ত্রী মোদীজি দেশের জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন।

এই অনুষ্ঠানে আজাদ হিন্দ ফৌজের বিশিষ্ট নেতারা ও নেতাজির পরিবারের সদস্যদেরা উপস্থিত ছিলেন। তাদের সামনে রেখেই এই বিশেষ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হচ্ছিল। সেই সময় নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসুকে স্মরণ করেন প্রধানমন্ত্রী, নেতাজীর সাথে কংগ্রেস যে অন্যায় করেছিল সেই সমস্ত কথা মনে পরে মোদীজির তার ফলেই নিজেকে আর ধরে রাখতে পারেন নি তিনি। সকলের সামনেই এই জনসভাতে প্রধানমন্ত্রী কেঁদে ফেলেন।

মোদীজি সেই সভা থেকে সরাসরি আক্রমণ করেন অত্যাচারি কংগ্রেস কে। উনি বলেন যে, শুধুমাত্র নিজেদের স্বার্থের জন্য নিজেদের পরিবারতন্ত্রের জন্য কংগ্রেস নেতাজীর মত একজন বীর কে সবসময় আড়াল করে দিয়েছেন দেশের মানুষের কাছে। দেশের জন্য আজাদ হিন্দ ফৌজের কৃতিত্বকে দেশের মানুষের কাছে ভুলিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছে কংগ্রেস। জি এই দিনের সভায় কংগ্রেস এবং কংগ্রেসি কাউকেই ছেড়ে কথা বলেন নি। নেতাজিকে দেশের মানুষের কাছে ছোটো করার জন্য তিনি কংগ্রেস কে এক হাত নেন। সেই সাথে তিনি চরম প্রশংসা করেন আজাদ হিন্দ ফৌজের।

এই সময়েই মোদিজী অত্যন্ত আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন এবং তার দুচোখ বেয়ে অশ্রুজল বের হয়।
আমরা সত্যি খুবই ভাগ্যবান যে এইরকম একজন দেশপ্রেমী প্রধান মন্ত্রী পেয়েছি। যিনি স্বাধীনতা সংগ্রামীদের শ্রদ্ধা করেন এবং তাদের উপযুক্ত সম্মান জানান। যেটা অনেকদিন আগে কংগ্রেসের করা উচিৎ ছিল সেটাই এখন করছেন মোদীজি। সত্যি আমরা মোদীজি না দেখলে জানতেই পারতাম না যে, এইভাবেও স্বাধীনতা সংগ্রামীদের সম্মান করা যায়। ধন্য আমরা মোদীজির শাসনকাল দেখে।
#অগ্নিপুত্র