Press "Enter" to skip to content

প্রধানমন্ত্রী মোদীর এই “5T প্ল্যানে” মুগ্ধ পুরো বিশ্ব! হতবাক বিরোধীরাও।

ইংরেজদের গোলামী করার অভ্যাস ভারতীয় উপর এমন প্রভাব করেছিল যে কংগ্রেসের কুশাসন থেকে বেরোতে দশক লাগিয়ে দিলো ভারতবাসী। নরেন্দ্র মোদীর সরকার আসার পর ভারতকে নতুন করে জাগিয়ে তোলার আশা দেখলো ভারতবাসী। ২০১৪ সালের আগেও ভারত নানা জিনিসের উৎপাদন করছিল কিন্তু ব্র্যান্ড ইন্ডিয়ার চিন্তা এই প্রথম কেউ দেশবাসীকে দেখিয়েছে। এতদিন শুধু আমরা নিজেদের প্রয়োজনীয় জিনিসের উৎপাদন করতাম কিন্তু সমগ্র বিশ্বের জন্য উৎপাদন করার স্বপ্ন এই প্রথম নরেন্দ্র দেখালেন তাও আবার 5Tএর সিদ্ধান্তের মাধ্যমে। এখন সেই স্বপ্ন পূরণ করতেও শুরু করেছেন পিএম

প্রধানমন্ত্রীর প্রথম T – TALENAT
মোদী সরকার দক্ষতার উপর জোর দিয়ে বিজ্ঞানী ও যুবা আবিষ্কারের উপর মনোযোগ দিয়ে তার উপর কাজ করা হচ্ছে। ২০১৩-১৪ এর তুলনায় আজ প্রটেন্টের সংখ্যা আজ ২০০% বেড়ে গিয়েছে। মোদী সরকার স্টার্টআপ এর পরিবেশ তৈরি করেছে। ২০১৩ সালে স্টার্টআপ এর সংখ্যা ২২০০ ছিল ২০১৬ সালে যা ৪৭৫০ এ পৌঁছেছিল। এই স্টার্টআপ এর জন্য ২০১৩ তে ১.৬ বিলিয়ন ডলার ফান্ডিং হয়েছিল যা ২০১৭ তে বেড়ে ১৩ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছে গেছিলো। একইভাবে স্পোর্ট এও মোদী সরকার ট্যালেন্টকে উৎসাহ দিয়েছিল। যার ফলাফল পুরো বিশ্ব এশিয়ান গেমসে দেখতে পেয়েছিল। সরকার ন্যাশনাল ট্যালেন্ট সার্চ পোর্টালও খুলেছে।

বিশ্বনেতা নরেন্দ্র মোদী

প্ৰধানমন্ত্রী মোদীর 2য় T – TRADITION
নেহেরু পরিবারের জন্য যে দেশ সাপ সাপুরেদের দেশ ছিল, সেই ভারতের আসল সঙ্গস্কৃতির দর্শন মোদী পুরো বিশ্বকে করিয়েছে। মোদী সংযুক্ত রাষ্ট্র সঙ্ঘে যোগা এর গুরুত্ব বুঝিয়ে দেন যার ফলে পুরো বিশ্ব ২১জুনকে আন্তঃরাষ্ট্রীয় যোগা দিবস পালন করে। যোগা আজ টপ ১০ ফিটনেস ট্রেন্ডের মধ্যে রয়েছে। ভারতে এই প্রথম বার ওয়ার্ল্ড ফুড ইন্ডিয়ার আয়োজন করা হয়েছিল। এটা মোদী আমলেই সম্ভব হয়েছে যখন আমাদের প্রাচীন চিকিৎসা পদ্ধতি আয়ুর্বেদকে ব্র্যান্ড আয়ুর্বেদ নামে লঞ্চ করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী মোদীর ৩য় T – TOURISM
নরেন্দ্র মোদী ভারতে ভ্রমণের দিকগুলোকে চিনেন এবং টুরিসম হাব বানানোর উপর জোর দেন। দেশকে ভ্রমণের পরিবেশ গড়ে তোলার জন্য লাগাতার কাজ করে চলেছেন মোদী। পুরানো সমস্থ ঐতিহ্যবাহী নিদর্শনগুলিকে সুন্দর করার সাথে সাথে মহারাজ শিবাজীর মূর্তি, সর্দার বল্লভভাই প্যাটেলের মূর্তি তৈরি করার কাজ শুরু করেছেন। মোদীর সরকারের স্বচ্ছতা মিশন ভারতে টুরিজমকে অনেকটা বুস্ট দিয়েছে।জানিয়ে দি ভিসা দেওয়ার বিভিন্ন নিয়ম সহজ করে দেশকে টুরিজম হাব গড়ে তোলার কাজ শুরু করেছেন মোদী। ফলাফল এই যে বাইরে থেকে ভারতে আসা ভ্রমনারথীদের সংখ্যা বড়ো মাত্রায় বৃদ্ধি পেয়েছে। WEF এর ট্রাভেল এন্ড টুরিসম কম্পেটিভনেস ইন্ডেক্স এ ভারত ২০১৩ তে ৬৫ তম স্থানে ছিল কিন্তু ২০১৭ তে ভারত ৪০ তম স্থানে ওঠে এসেছে। ওয়ার্ল্ড টুরিজম ব্যারোমিটারে ভারত ২০১৩ তে ৪১ তম স্থানে ছিল , ২০১৭ সালে ভারত ২৪ তম স্থানে উঠে এসেছে।

প্ৰধানমন্ত্রী মোদীর চতুর্থ T – TRADE
যে দেশে আগে কোনো ইনভেস্টর আসার নাম করতো না সেই দেশের অর্থব্যবস্থাকে মোদী ব্যান্ড ইন্ডিয়া বানিয়ে দিয়েছেন। যার সবথেকে বড়ো প্রমান হয়েছে FDI, ২০১৩-১৪ তে যে FDI ৩৬.০৫ বিলিয়ন ডলার ছিল ২০১৭-১৮ তে সেই FDI প্রায় দ্বিগুণ হয়ে ৬১.৯৬ তে পৌঁছে গিয়েছে। ভারত আজ ফ্রান্সকে পেছনে ফেলে বিশ্বের ষষ্ঠতম বড়ো ইকোনমিতে পরিণত হয়েছে। WORLD BANK এর ইস অফ ডুইং বিজনেসে ভারত ১৪২ তম স্থান থেকে উঠে এসেছে।

প্ৰধামন্ত্রী মোদীর পঞ্চম T – TECHNOLOGY
২০১৪ সালের আগেও ভারত আইটির বাদশা ছিল কিন্তু ভারতের ট্যালেন্ট শুধুমাত্র বিদেশের মাটিতে কাজে লাগত। মোদী সরকার আসার পর শুধু ই গভর্ন্যান্স এর উপর জোর দেওয়া নয় একই সাথে ডিজিটাল ইন্ডিয়ার আন্দোলন শুরু করে দিয়েছিলেন। আজ ভারত বিশ্বের সবথেকে সস্তা ডেটা ১৯ টাকা প্রতি জিবি উপলব্ধ করবার ক্ষমতা রাখে। ভারতের BHIM এপ্লিকেশন এখন সমস্থ জায়গায় নিজের পরিচয় তৈরি করে নিয়েছে। আজ ভারতের নিজস্ব পেমেন্ট গেটওয়ে RUPAY রয়েছে। ভারত এখন একসাথে ১০৪ মিসাইল ছাড়ার প্রথম দেশ। ভারতে ১ লক্ষ ১৯ হাজার গ্রাম পঞ্চায়েতে ফাইবার অপটিক্যাল নেটওয়ার্ক পৌঁছে গেছে। সোলার এনারজির দিক থেকে ভারত বিশ্বকে নেতৃত্ব দিতে শুরু করেছে।

নরেন্দ্র মোদীর কথায়, এই পাঁচটি T নিয়ে আমরা বিশ্বকে একটা বাজার তৈরির ক্ষমতা উৎপন্ন করতে পারি। ভারত উৎপাদন করবে, বিশ্ব ক্রয় করবে এটাই মোদীর মূলমন্ত্র। মোদী ভোটের আগে যেগুলো বলেছিলেন সেগুলো প্রতিশ্রুতি নয় বরং শপদ ছিল যা তিনি একের পর এক পূরণ করে চলেছেন।