Press "Enter" to skip to content

অমৃতসরে ৫০ এর বেশি লোকজন ট্রেনের নিচে চাপা পড়ার পর, পালিয়েছিলেন কংগ্রেসের নবজোত সিং সিদ্ধুর স্ত্রী।Bengali News

ের ে দশহেরার উৎসবকে পাঞ্জাবের মন্ত্রী তথা নেতা এর পত্নী শোকের ছায়া করে দিয়ে পলায়ন করেছে। অমৃতসরে িরা রাবন দহনের কার্যক্রমের আয়োজন করেছিল সেটাও আবার রেল লাইনের পাশে। এই আয়োজনে নবজোত সিং সিদ্ধু এর পত্নী নবজোত কর সিদ্ধুর আসার কথা ছিল যিনি নিদিষ্ট সময়ের পরে এসেছিলেন। নবজোত কর সিদ্ধু নেতাগিরি করার জন্য এই আয়োজন করেছিল। ের সমর্থকরা এবং স্থানীয় জনগণ রাবন দহন দেখতে ও নবজোত কর সিদ্ধুকে দেখতে পৌঁছেছিল ের আয়োজিত এই কার্যক্রমে। এই কার্যক্রমে ের সমর্থকরা খুব হাইহুল্লো ও চেঁচামেচি করছিল কারণ এটা একটা রাজনৈতিক কার্যক্রম ছিল। এর মধ্যেই নবজোত সিং সিদ্ধু এর পত্নী নবজোত কর সিদ্ধু কার্যক্রমে পৌঁছান এবং ের সমর্থকেরা চেল্লামেল্লির শব্দ আরো তীব্র করে দেয়।

আরো পড়ুন – বিজয়া দশমী ও দশেরা উপলক্ষে দেশবাসীকে এক অসাধারণ উপহার দিল ভারতীয় সেনা।

চারিদিকে আলো,শব্দের আয়োজে রেল লাইনের উপর দাঁড়িয়ে থাকা মানুষজন বুঝতেই পারেনি যে ট্রেন আসছে। ট্রেন হর্ন দিয়েছিল কিন্তু কংগ্রেসের সমর্থকরা সিদ্ধুর পত্নীকে দেখার আনন্দে এত চিৎকার যে হর্নের শব্দ কারোর কানে পৌঁছায়নি। যার জন্যে ট্রেন ৫০ এর থেকে বেশি লোকজনের উপর দিয়ে পেরিয়ে চলে যায়। রেল লাইনের এত পাশে রাবন দহন, তার মধ্যে সিদ্ধুর পত্নীর ভাষণের আয়োজন করা, এতকিছুর জন্য প্রশাসনের কাছে কোনো অনুমতি নেয়নি কংগ্রেস সমর্থকরা।

অনুমতি তো দূর প্রশাসনকে এই ব্যাপারে কিছু জানায়নি পর্যন্ত কংগ্রেস সমর্থকরা। মানুষের প্রাণ নিয়ে ছেলেখেলা করে দিলো নবজোত সিং এর পত্নী ও তার সমর্থকরা। এই ঘটনা ঘটার পর নবজোত সিং এর পত্নী স্থান থেকে পলায়ন করে। দুর্ঘটনায় মানুষের পাশে না দাঁড়িয়ে, সাহায্যের হাত না বাড়িয়ে দিয়ে পলায়ন করে নবজোত সিং সিদ্ধুর পত্নী। পুরো ঘটনাটি অমৃতসরের চৌরা বাজার এলাকায় ঘটেছে।

আরো পড়ুন – দারুন খবর- অধীর চৌধুরী ও সুমিত্রা মহাজন একসাথে পুজামণ্ডপে ! বিজেপিতে যোগ দেবেন প্রাক্তণ প্রদেশকংগ্রেস সভাপতি 

এই দুর্ঘটনা কোনো ভাবেই হতো না যদি কংগ্রেরসিরা কার্যক্রমের জন্য প্রশাসনের কাছে অনুমতি নিত, নবজোত কর সিদ্ধুর ভাষণ না রাখতো, সিদ্ধুর পত্নী নিদ্রিষ্ট সময়ে আসতো এবং রেল লাইনের এত পাশে কার্যক্রম না করতো। নবজোত কর সিদ্ধু রাবন দহনের নামে নিজের প্রচারে বেশি মেতেছিল এই কারণে ৫০ এর বেশি লোকজনকে প্রাণ হারাতে হলো। প্ৰতক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন ঘটনা ঘটার পরেই সিদ্ধুর পত্নী স্থান থেকে পলায়ন করেন।পুলিশ আপাতত ৫০ জনের মৃত্যুর নিশ্চত করেছে সংখ্যা বাড়তেও পারে।