Press "Enter" to skip to content

ক্ষমতার লোভে নেহেরু ষড়যন্ত্র করে নেতাজির হত্যা করিয়েছিলেন! চাঞ্চল্যকর পর্দাফাঁস করলেন সুব্রামানিয়াম স্বামী।

আমাদের সকলের প্রিয় বাঙালীর গর্ব । তিনি ছিলেন একজন দেশপ্রেমী বিপ্লবী। দেশকে স্বাধীনতা দেওয়ার জন্য নিজের সমস্ত কিছু পরিত্যাগ করে ইংরেজদের বিরুদ্ধে লড়াই করেছেন তিনি। কথায় আছে মৃত্যু হয় মানুষের কিন্তু ভগবানতো অমর। তাই এখনও আমাদের সকল ভারতীয়দের কাছে নেতাজি অমর হয়ে আছেন। তিনি দেশ ছেড়ে যাওয়ার পর থেকে উনাকে আর খুঁজে পাওয়া যায় নি। কি হল নেতাজির? সেই প্রশ্নের উত্তর এখন পাওয়া যায় নি। দেশের মানুষ এখনও কৌতুহলের সাথে জানতে চাই তাদের প্রিয় দেশপ্রেমীক যোদ্ধা কোথায় আছে? কেন শেষ বারের মত দেশে ফিরে এলেন না। এবার উনার মৃত্যুকে নিয়েই উঠে এল নুতন মোড়।

এবার বিজেপি নেতা ও আইনজীবী সুব্রামনিয়ান স্বামী এক দাবি করলেন। তার দাবি হল নেতাজির মৃত্যু কোনো বিমান দুর্ঘটনায় হয়নি নেতাজিকে হত্যা করা হয়েছিল এবং তার পিছনে মদত দিয়েছিল প্রাক্তন রুশ প্রেসিডেন্ট জোসেফ স্ট্যালিন।আগরতলায় এক অনুষ্ঠানে অংশগ্রহন করেছিলেন স্বামী। সেখানে তিনি বক্তৃতা দিতে গিয়ে এই প্রসঙ্গ তুলে বলেন যে, ১৯৪৫ সালে নেতাজিকে রাশিয়াতেই খুন করা হয়েছিল।

নেতাজি ও নেহেরু

রবীন্দ্র শতবার্ষিকী উপলক্ষে ত্রিপুরাতে অনুষ্ঠিত হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। সেখানেই তিনি উপস্থিত হন। সুব্রামনিয়ান স্বামী বলেন, রাশিয়ার কাছে সেই সময় রাজনৈতিক ভাবে আশ্রয় চেয়েছিল নেতাজী কারন তখন দেশের পরিস্থিতি ছিল একটু অন্যরকম। রাশিয়া নেতাজি কে আশ্রয় দেওয়ার এই সুযোগে হত্যা করে তাকে। আর এই পুরো ঘটনাটি ঘটে জোসেফ স্ট্যালিন এর মদতে যিনি তৎকালীন রুশ প্রেসিডেন্ট ছিলেন।

আরো পড়ুন – BSF এর এক হামলায় ভাষা বদলে গেল পাকিস্থানের ! আমরা ভারতের সাথে যুদ্ধ চাই না শান্তি চাই: পাকিস্থান।

সুভাষচন্দ্র বসু

স্বামীর দাবি, শুধুমাত্র নিজে দেশের প্রধানমন্ত্রী হবার লোভে জহরলাল নেহেরু ব্রিটিশদের সঙ্গে ষড়যন্ত্র করে নেতাজির খুন হওয়ার এই ঘটনার তদন্ত না করে সেটাকে দুর্ঘটনার খবর হিসাবে দেশে প্রচার করেন। তার আরও দাবি যে, শুধুমাত্র নেতাজি ও তাঁর আজাদ হিন্দ বাহিনীর জন্যই ব্রিটিশরা ভারত ছাড়তে বাধ্য হয়েছিল। ১৯৪৮ সালে ভারতে এসে নিজের মুখে এইকথা শিকার করে নেন প্রাক্তন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ক্লিমেন্ট এটলি। স্বামী বলেন কংগ্রেস আর বামপন্থীরা মিলে ছাত্রছাত্রীদের ভুল ইতিহাস পড়িয়েছে। বিজেপি এবার সব সত্য তুলে এনে পাঠ্যক্রমে তা যোগ করবে। তবে এতে সময় লাগবে বলে জানান তিনি।

#অগ্নিপুত্র