Press "Enter" to skip to content

সেদিন যদি নেহেরু মেহেরবান না হত, তাহলে আজ চীন ও পেহেলবান হত না!

জঙ্গি সংগঠন জৈশ এ মহম্মদ এর প্রধান মাসুদ আহাজারকে গ্লোবাল টেররিস্ট ঘোষণা করার চেষ্টায় চীন আবার নাক গলাল। আর এরপর কংগ্রেসের সভাপতি রাহুল গান্ধী নরেন্দ্র মোদী সরকারকে অনৈতিক আক্রমণ করেন। ওনার মতে এটা মোদীর ‘বিফল বিদেশ নীতির” ফল।

আবার তিনি চীনের পক্ষ নিয়ে একটি টুইট করেন। উনি বলেন, ‘চীনের রাষ্ট্রপতির কাছে মোদী কমজোর। আর চীনের রাষ্ট্রপতি কে ভয় পান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।” দেশের নেতা হয়ে চীনের অনৈতিক কাজের বিরোধিতা না করে উল্টে উনি দেশের প্রধানমন্ত্রীকেই আক্রমণ করেন।

আরেকদিকে রাহুল গান্ধীর টুইটের জবাবে পাল্টা টুইট করে ভারতীয় জনতা পার্টি। ভারতীয় জনতা পার্টি রাহুলের টুইটকে রিটুইট করে লেখে, ‘ UNSC চীন থাকতই না যদি আপনার ‘নানা” চীনকে উপহার না দিত। ভারত আপনাদের পরিবারের সমস্ত ভুল কে শুধরাচ্ছে। আপনি আশ্বস্ত থাকুন যে ভারত সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে এই যুদ্ধ জিতবে। আপনি এসব প্রধানমন্ত্রীর উপর ছেড়ে দিন, আর লুকিয়ে লুকিয়ে চীনের দূতদের সাথে দেখা করুন।”

আপনাদের জানিয়ে রাখি ভারত, পাকিস্তান আর চীন প্রায় একই সময় স্বাধীনতা পায়। আর তারপর ভারত গণতান্ত্রিক দেশ হয়ে যায় এবং চীন কমিউনিস্ট দেশ আর পাকিস্তান ইসলামিক দেশের তকমা পায়। যখন সংযুক্ত রাষ্ট্রের সুরক্ষা পরিষদে এশিয়ার একটি দেশকে নেওয়ার কথা উঠছিল। তখন সংযুক্ত রাষ্ট্রের বাকি সদস্যরা ভারতের নামের প্রস্তাব দিয়েছিল। এমনকি ইউরোপের দেশ গুলোও ভারতের হয়ে তাবেদারি করেছিল।

আমেরিকার তৎকালীন রাষ্ট্রপতি ভারতের প্রধানমন্ত্রী জওহর লাল নেহেরুকে প্রস্তাব দিয়ে বলেন, ‘আপনারা সংযুক্ত রাষ্ট্রের সদস্য, তবে আমরা চাই আপনারা সংযুক্ত রাষ্ট্রের সুরক্ষা পরিষদের ও সদস্য হন।” উনি এও বলেন যে, ভারত একটি গণতান্ত্রিক দেশ আর একটি গণতান্ত্রিক দেশই সংযুক্ত রাষ্ট্রের সুরক্ষা পরিষদের জন্য যোগ্য।

কিন্তু এখনকার মত তখনও কংগ্রেস আর দেশের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী জওহর লাল নেহেরু চীন প্রেমী ছিলেন। আর সেই জন্য তখন উনি ভারতকে সংযুক্ত রাষ্ট্রের সুরক্ষা পরিষদের সদস্য না করে, চীনকে দান করে দিয়েছিলেন সেই সদস্যতা!

আর সেইদিন যদি এই কাজ না করতেন, তাহলে ভারতের পরিস্থিতি আজ আলদা হত। আজাহার মাসুদকে আন্তর্জাতিক জঙ্গি ঘোষণা করার জন্য আজ চীনের ভরসায় থাকতে হত না ভারতের। সেদিন যদি নেহেরু মেহেরবান না হতেন, তাহলে আজ চীন ও পেহেলবান হত না।

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.