Press "Enter" to skip to content

মোদী সরকারের অসাধারণ সিধান্ত! দেশে জমে থাকা আবর্জনা দিয়ে নির্মাণ করা হবে সড়ক।

এবার মোদী সরকার খুবই অভূতপূর্ব পদক্ষেপ নিতে চলেছে। এমন পদক্ষেপ এখন পর্যন্ত কোনো সরকার নেওয়া তো দূর কল্পনাও করতে পারেনি। যা আগের কোনো সরকার ভাবতে পারিনি সেই ঐতিহাসিক পরিবর্তন আনতে চলেছে মোদী সরকার। দেশে অনেক ল্যান্ডফিল(শহুরে এলাকার আবর্জনা স্তুপ) রয়েছে যেগুলো দূষণ ছড়ানোর জন্য ব্যাপকভাবে দায়ী। দিনের পর দিন ধরে পড়ে থাকা এই ল্যান্ড ফিলগুলো থেকে সাধারণভাবে দূষণ ছড়ানো ছাড়াও, অনেক সময় আগুন লেগে গিয়ে দূষণ ১০-২০ গুন বেড়ে যায়। বিগত বছরে এমনি একটা আবর্জনার পাহাড়ের অংশ ভেঙে গিয়ে দুর্ঘটনা ঘটেছিল যাতে কিছু জন প্রাণ হারিয়েছিল। এখন মোদী সরকার আবর্জনার স্তূপ দিয়ে নির্মাণ কাজ শুরু করার পরিকল্পনা বানিয়ে ফেলেছে। প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী ডাসনা থেকে মেরট পর্যন্ত সড়ক আবর্জনা থেকে নির্মাণ করা হবে।

ন্যাশনাল হাইওয়ে অথরিটি অফ ইন্ডিয়া গাজীপুর ল্যান্ডফিল্ডের আবর্জনা ব্যাবহার করে ডাসনা থেকে মিরাট পর্যন্ত গ্রীনফিল্ড এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণ করবে। জানিয়ে দি, গাজীপুর ল্যান্ডফিল্ডে প্রায় ১৪০ লাখ টন আবর্জনা রয়েছে। এটা মোদী সরকারের একটা দুর্দান্ত পরিকল্পনা, কারণ এর সাহায্যে জমা হয়ে থাকা আবর্জনা নষ্ট হয়ে যাবে। জমে থাকা আবর্জনা থেকে বের হওয়া দুর্গন্ধ এই জন্য নানা বিপদজনক রোগ দেখা দিচ্ছে। এখন এই আবর্জনা নষ্ট করে সড়ক নির্মাণ করলে একটা যুগান্তকারী পদক্ষেপ হবে।

ইস্ট এমসিডি কার্যকর্তারা জানিয়েছে সেন্ট্রাল রোড রিসার্চ ইনস্টিটিউট দ্বারা এই বিষয়ে সার্ভে করা হয়েছিল সেখানে বড়ো সাফল্য পাওয়া গেছে। এক বরিষ্ঠ আধিকারিক বলেন, যদি এই পরিকল্পনা আগে কাজে লাগানো হতো তাহলে আবর্জনার স্তুপ নিয়ে দেশে এত সমস্যা হতো না এবং বিগত বছরে দুর্ঘটনাও ঘটতো না। আবর্জনার স্তুপ থেকে সড়ক নির্মাণের যে সার্ভে করা হয়েছিল তাতে ৬৫-৭৫% আবর্জনা ব্যাবহার করা হয়েছিল এমনটাই জানিয়েছেন ইস্ট এমসিডি কার্যকর্তারা।

আবর্জনার স্তূপ থেকে যে দুর্ঘটনা ঘটেলছিল সেটাও গাজীপুর ল্যান্ডফিল এর কারণেই ঘটেছিল। বিগত ৩৪ বছর ধরে আবর্জনা জমে এত বিশাল পাহাড়ে পরিণত হয়েছিল যে পাহাড়ের একটা স্তুপ ভেঙে কয়েকজনের মৃত্যু ঘটেছিল। তবে এখন মোদী সরকার এই আবর্জনার স্তুপ থেকে সড়ক নির্মানের সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছে। জানিয়ে এই সমস্থ কিছু পরিকল্পনা কেন্দ্রীয় পরিবহনমন্ত্রী নীতিন গতকারী এর তত্ত্বাবধানে করা হচ্ছে।