Press "Enter" to skip to content

তাজমহলে নামাজ পড়া নিয়ে ঐতিহাসিক রায় দিলো সুপ্রিম কোর্ট।

আগ্রায় স্থিত তাজমহল হল বিশ্বের সপ্তম আশ্চর্যের মধ্যে একটি। এই তাজমহল ভারতবর্ষের ঐতিহ্য। তাই একে রক্ষা করার দায়িত্ব সকল ভারতীয়র।কিন্তু কিছু মানুষ দেশের এই ঐতিহ্যকেউ নিজের ধর্মের সাথে জুড়ে টানাটানি করতে থাকে এবং সেখানে ধর্মীয় রীতিনীতি পালন করে পরিবেশের করার চেষ্টা করে। তাই সমস্তকিছুর উপর বিচার করে সুপ্রিমকোর্ট জানিয়ে দিল যে এই তাজমহলের ভিতর কোনো রকম ধর্মীয় অনুষ্ঠান করা যাবে না। এটাও বলে দিয়েছন যে এর ভিতর পাঠ করাও যাবে না।

সুপ্রিমকোর্টের দুই বিচারপতি এ কে সিক্রি ও বিচারপতি অশোক ভূষণের বেঞ্চ পরিষ্কার ভাবে জানিয়ে দেন যে যাদের নামাজ পড়ার ইচ্ছা থাকবে তারা বাইরের যেকোনো ে গিয়ে নামাজ পড়তে পারেন কিন্তু এই বিখ্যাত সৌধের ভিতর কিছু করা যাবে না। সেক্ষেত্রে আগ্রার প্রশাসনের সিদ্ধান্তকেই তারা বহাল রাখলেন।
শহরের অতিরিক্ত জেলাশাসক চলতি বছরের ২৪শে জানুয়ারি নির্দেশিকা জারি করেন। সেখানে বলা হয়েছে যে বিখ্যাত স্মৃতি সৌধ তাজমহল কে রক্ষা করতে হবে তার জন্য তাজমহলের ভিতর যেকোনো ধরনের প্রার্থনা বন্ধ করতে হবে। মসজিদ ম্যানেজমেন্ট কমিটির সভাপতি সৈয়দ ইব্রাহিম হুসেইন জৈদী প্রশাসনের এই সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ করেন এবং তিনি সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হন। তিনি সেখানে দাবি জানান যে প্রশাসনের এই সিদ্ধান্ত বেআইনি। তাজমহলে সারা বছর ধরে অনেক পর্যটকরা আসেন তাই তাদের প্রার্থনা করার ব্যবস্থা তাজমহল কমিটিকেই করে দিতে হবে। কিন্তু সুপ্রিম কোর্ট তার এই আবেদন খারিজ করে দেয় সোমবার।

শহরের অতিরিক্ত জেলাশাসক তার নির্দেশকায় বলেন যে আগ্রার বাইরে থেকে যে সমস্ত মানুষ শুক্রবার তাজমহলের ভিতরে থাকা মসজিদে নামাজ পড়ার জন্য আসেন তাদের কে নিরাপত্তা দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না তাই তিনি জানিয়ে দেন যে আগ্রার বাইরের কোনো লোক আর শুক্রবারের নামাজে অংশগ্রহণ করতে পারবেন না। প্রশাসনের এই সিদ্ধান্তে সোমবার শিলমোহর দিল সুপ্রিম কোর্ট।
সেই সিদ্ধান্তকে মান্যতা দিয়ে এদিন সুপ্রিম
কোর্টের বিচারপতিরা বলেছেন যে এই ভাবে তাজমহলে এসে নামাজ পড়তে হবে এমন কোনো মানে নেই শহরে আরও অনেক মসজিদ আছে সেখানে গিয়ে নামাজ পড়ুক। এই ভাবে এত লোক একসাথে এলে তাদের নিরাপত্তা দেওয়া কোনো ভাবেই সম্ভব নয়। এছাড়া এই কারনের জন্য তাজমহলের অনেক ক্ষতি হচ্ছে। সেটা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যাবে না। তাই প্রশাসনের এই সিদ্ধান্তকে তারা সঠিক বলেই মেনে নিয়েছেন।
#অগ্নিপুত্র