Press "Enter" to skip to content

দেশ থেকে দুর্নীতি মুছে ফেলতে ‘অপারেশন ব্ল্যাক আউট’ শুরু করতে চলেছে মোদী সরকার।

‘না খাউঙ্গা না খানে দুঙ্গা’- এটা প্রধানমন্ত্রীর সেই বক্তব্য যা বড়ো বড়ো দুর্নীতিগ্রস্থ ধনকুবেরদের রাতের ঘুম কেড়ে নিয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্য কংগ্রেস আমলের বড় বড় নেতা ও ডাকাত ব্যাবসায়ীদের ঘাম ঝরিয়ে দিয়েছে। প্রধানমন্ত্রী ক্ষমতায় আসার পর নোটবন্দির মতো এমন বড়ো পদক্ষেপ নিয়েছেন যা আগে ভারতের সাধারণ মানুষ তো দূর নেতামন্ত্রীরাও কল্পনা করতে পারেনি।এবার মোদী সরকার আরো একবার ‘অপারেশন ব্ল্যাক আউট’ এর উপর কাজ শুরু করে দিয়েছে।

এর জন্য মোদী সরকার স্পেশাল মেগা প্ল্যান তৈরী করে ফেলেছে। জানা যাচ্ছে সরকার আম থেকে খাস অর্থাৎ কর্পোরেট থেকে চাকুরীজীবি সবার লেনদেনের উপর নজর রাখতে চাইছে। সরকারের এই প্লানের উপর RBI তাদের কাজ শুরু করে দিয়েছে। সরকার চেষ্টা করছে ের সাথে সাথে ঘরোয়া বাজারের উপরেও কড়া নজর রাখতে। সরকারের কাছে এমন কিছু তথ্যে এসেছে যেখানে প্রোপার্টি রেজিস্টার করানোর জন্য স্ট্যাম্প পেপার ক্যাশ দিয়ে কেনা হয়েছে। মোদী সরকার এই সমস্থ লোকেদের উপর তদন্ত করাবার প্রস্তুতি নিয়ে ফেলেছে। আপনাদের জানিয়ে রাখি বেনামি সম্পত্তি আইন চালু করার পর থেকে আয়কর বিভাগ মাত্র দেড় বছরে ৪৩০০ কোটি টাকারও বেশি বেনামি সম্পত্তি উদ্ধার করেছে। বেনামি সম্পত্তির সূচনা দেওয়ার জন্য সরকার ৫ কোটি টাকা পর্যন্ত উপহার ঘোষণা করে রেখেছে একই রকমভাবে ট্যাক্স চুরির ব্যাপারে সূচনা দেওয়ার জন্য ৫০ লক্ষ টাকার উপহার ঘোষণা করেছে।

এমনকি ভারত ছেড়ে পালিয়ে যাওয়া বিজয় মালিয়ার মতো লোকেদের মোদী কি অবস্থা করেছে তা সবার সামনে চলে এসেছে। ইতিমধ্যে তো কাছে থেকে স্টেট ব্যাঙ্ক তাদের ঋণ পুনরুদ্ধার করে ফেলেছে এবং বিজয় মালিয়া সব ঋণ মিটিয়ে দেওয়ারও কথা বলেছে যদিও মোদী সরকার বিজয় মালিয়াকে কড়া সাজা দেওয়ার কথা ভাবছে বলেই জানা গেছে। অর্থাৎ এটা স্পষ্ট যে মোদী সরকার যেনতেন প্রকারে ভারত থেকে ও ভণ্ডামি শেষ করেই ছাড়বেন।