Press "Enter" to skip to content

আতঙ্কের চোটেই, সকালে ভারতকে যুদ্ধের হুমকি দেওয়া পাকিস্তান, দুপুরে এসে শান্তির পাঠ পড়াচ্ছে!

পাকিস্তানি সেনার মুখপাত্র আসিফ গাফুর বলেন, ‘আমরা যুদ্ধ চাইনা, শান্তি চাই” ভারতীয় সেনা দ্বারা পাকিস্তানি বায়ুসেনার এফ-১৬ বিমান ধ্বংস করার পরেই এই বয়ান দেন পাক সেনার মুখাপাত্র আইফ গফুর। যদিও তিনি ভারতের দ্বারা পাকিস্তানের এফ-১৬ বিমান ধ্বংস করার ঘটনাকে অস্বীকার করেন।

Maj Gen Asif Ghafoor

গফুর ভারতের উপর যুদ্ধের পরিস্থিতি তৈরি করার অভিযোগ আনে। উনি বলেন, যুদ্ধে মানবতা হারে। আমাদের সেনার বিমান ভারতীয় সীমায় ঢুকে পরাটা আমাদের আত্মরক্ষার মধ্যে পরে। আমরা এটাই প্রমাণ করতে চাইছিলাম যে, আমরা কোনোদিক থেকেই কম না। আর আমরা কাউকে চোট ও দিতে চাইনা। আমদের কাছে নিজেদের আত্মরক্ষার ক্ষমতা আছে।

গফুর বলেন, ভারতীয় এলাকায় ভারতের একটি এয়ারক্রাফট ভেঙে পড়ার আছে। কিন্তু ওটার পিছনে আমাদের হাত নেই। বুধবার মিডিয়ার সামনে এসে গফুর বলেন, ‘ আমরা যুদ্ধ চাইনা, আর আমরা কোন সময় যুদ্ধের জন্য প্রথম হামলা করব না। কিন্তু ভারত আমাদের বাধ্য করলে আমরা চুপ থাকব না”

গফুর বলেন, ‘বুধবার ভারতের বায়ু সীমা লঙ্ঘন করে পাকিস্তানি সেনা বুঝিয়েছে যে, আমরাও কোন অংশে কম না। আমরা আত্মরক্ষার জন্য প্রস্তুত। আমরা শুধু ওই এলাকা গুলোকে নিশানা বানিয়েছি, যেখানে জনমানব ছিল না। আমরা কাওর ক্ষতি করতে চাইনি”

যদিও মাত্র ভারতের তিন কিমি ভিতরে ঢুকে পাক বায়ুসেনার বিমান তাড়া খেয়ে পালাতে বাধ্য হয়েছিল, সে কথা স্বীকার করেন নি উনি। আর উনি ভারতীয় সেনা দ্বারা পাক বায়ুসেনার বিমানকে উড়িয়ে দেওয়ার ঘটনাকেও অস্বীকার করে গেছেন।

আর উনি যেই শান্তি এবং মানবতার কথা আজ শোনাচ্ছেন, তাঁর পরিপেক্ষিতে একটাই কথা বলা যায় যে। পাকিস্তান বরাবর যুদ্ধ বিরতি লঙ্ঘন করে ঘন জনবসতি পূর্ণ এলাকায় ফায়ারিং চালায়। কাল দুপুর থেকেই দফায় দফায় যুদ্ধ বিরতি চুক্তি লঙ্ঘন করা হয়েছে। তখন উনি মানবতার পাঠ পড়ান নি।

পাকিস্তান বরাবরই ভারতের জবাবি হামলায় যখন পারেনা। তখন তাড়া সাদা পতাকা নিয়ে ফ্ল্যাগ মিটিং এবং শান্তির কথা বলে। আর তারপরেই আবার যুদ্ধ বিরতি লঙ্ঘন করে। তাই পাক সেনার মুখপাত্রের মুখে এই ‘মানবতা” কথাটা মানায় না।

7 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.