Press "Enter" to skip to content

পাকিস্থানের সরকারের উপর জনবিক্ষোভ শুরু সাধারণ জনতার! দেশ ছেড়ে পলায়ন করছে পাকিস্থানিরা।

সম্পূর্ণরূপে কাঙালে পরিণত হয়েছে। বিদেশি ব্যাঙ্ক এবং চীনের কাছে বহু কোটি টাকার ঋণে ডুবে রয়েছে। ঋণ মেটানোর জন্য ইমরান খানকে গাড়ি, এমনকি মোষ পর্যন্ত বিক্রি করতে হচ্ছে। বাঁধ নির্মাণের জন্য জনগণের কাছে হাত পাততে শুরু করেছে । মোদী আমেরিকার সাথে মিলে এমন কূটনীতি খেলেছে যে আমেরিকা থেকে যে বিশাল পরিমান টাকা ফান্ডিং পায় তার সমস্থতাই বন্ধ হয়ে গেছে। জনগণকে দুবেলা খাবার দিতে পারছে না কিন্তু অস্ত্র জোগান করার খিদে মিটছে না ের। ের আর্মি স্টেটিজিক ফোর্স কামান্ড AFC সোমবার দিন পরমাণু আক্রমণে সক্ষম গৌরী ব্যালাস্টিক মিসাইলের সফল পরীক্ষা করেছে। যারপর ে জনগণের বিক্ষোপ শুরু হয়ে গিয়েছে। ের সরকার ও সেনার বিরুদ্ধে জনগণ শ্লোগানবাজি ও বিদ্রোহ শুরু হয়েছে। জনগণের বক্তব্য এখানে বিদুৎ নেই, জল নেই, মানুষ কৃষিকাজ পর্যন্ত করতে পারছে না,মানুষ খিদের জ্বালায় মারা যাচ্ছে অন্যদিকে সরকার অস্ত্রভান্ডার গড়ে তুলেছে।

মিডিয়ার কাছে পাকিস্থানিরা বিক্ষোপ প্রদর্শন করে বলে, এই অস্ত্রভাণ্ডার কি মানুষের পেট ভরতে পারবে! তাহেল কেন এই সকল করা হচ্ছে? পাকিস্থানের অবস্থার পরিবর্তন করতে ইমরান খান সম্পূর্নরূপে বিফল রয়েছে। ইমরান খান ক্ষমতায় আসার আগে দাবি করেছিল যে উনি IMF থেকে আর লোন নেবেন না। কিন্তু এখন আরো একবার ইমরান খান IMF এর কাছে হাত পাততে(বেল আউট প্যাকেজ( শুরু করেছে। সব থেকে বড়ো ব্যাপার পাকিস্থানের বিদেশী ভান্ডার শেষ হয়ে এসেছে। মঙ্গলবার দিন পাকিস্থানের টাকা সম্পূর্ণভাবে ধ্বংস হয়ে গেছে।

হিন্দু সম্রাট

এমনিতেই পাকিস্থানের অর্থনীতি ভেঙে পড়েছে তার মধ্যে ১ ডলার ১৩৯ টাকা পাকিস্থানি টাকায় পৌঁছে গেছিলো। পাকিস্থানে টাকার এতবড়ো নেমে যাওয়া ১৮ বছরে এই প্রথম। IMF অনুমান করেছে যে আগত ৫ বছরে পাকিস্থানের উপর বিদেশী লোন ১৪৫ আরব ডলার পর্যন্ত পৌঁছে যাবে যা মেটানোর ক্ষমতা পাকিস্থানের মধ্যে নেই। বিগত ৫ বছরে ২৮ লক্ষ মানুষ পাকিস্থান ছেড়ে পলায়ন করেছে কারণ তারা মনে করেন পাকিস্থানের কোনো ভবিষ্যৎ নেই, সেখানে কোনো উন্নতি হওয়া সম্ভব নয়।

ইমরান খান

২০১৬ থেকে ২০১৭ এর মধ্যে তৈরি করা রিপোর্ট অনুযায়ী পাকিস্থান ছেড়ে যাওয়া লোকেরা নিজেদের সাথে ১৫ আরব ডলার সম্পত্তি নিয়ে গেছে। পাকিস্থানে কেউ ট্যাক্স দিতে রাজি নয়, কারণ জনতা সরকারের উপর ভরসা করতে পারছে না। পাকিস্থানের জনসংখ্যা ২০ কোটি সেখানে মাত্র ১০ লক্ষ মানুষ ইনকাম ট্যাক্স রিটার্ন ফাইল করেছে। আর এই অবস্থার মধ্যে পাকিস্থান মিসাইল লঞ্চ ও চীন থেকে ড্রোন কিনতে ব্যাস্ত হয়ে পড়েছে। যা নিয়ে তুমুল বিক্ষোপ শুরু করেছেন পাকিস্থানের সাধারণ জনতা।