Press "Enter" to skip to content

জম্মুতে উঠলো ভারত বিরোধী স্লোগান, তারপর দেশপ্রেমী ছাত্ররা এসে দিলো চরম দাওয়াই

জম্মুর সায়েন্স কলেজের পাশের এক হোস্টেলে থাকা কাশ্মীরি মানুষ আর কলেজের ছাত্রদের মধ্য চরম সংঘর্ষ বেঁধে যায়। অভিযোগ আসে যে কিছু মানুষ পাকিস্তান জিন্দাবাদ এর স্লোগান দিয়েছিল। আর তারপর ছাত্ররা চরম ক্ষুব্ধ হয়ে যায়। পরিস্থিতি এতটাই উত্তপ্ত হয়ে ওঠে যে, কাশ্মীরি আর ওই কলেজের ছাত্রদের মধ্যে মারপিট ও হয়। কাশ্মীরিরা ছাত্রদের উপর পাথর ছোঁড়ে। পুলিশ এসে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে লাঠিচার্জ করে। এখন হোস্টেল আর কলেজ ক্যাম্পাসে প্রচুর পরিমাণে পুলিশ মোতায়েন করা আছে।

সুত্র থেকে পাওয়া অনুযায়ী, উপতক্যায় প্রচণ্ড বরফ পরার জন্য কিছু কাশ্মীরি ওই হস্টেলে আটকে ছিল। এবং তাঁরা নিজের ঘরে ফিরে না যেতে পারার জন্য প্রদর্শন শুরু করে। তখন সেখান থেকে একটি বোলেরো গাড়ি যাচ্ছিল। উত্তেজিত কাশ্মীরিরা ওই গাড়িতে পাথর ছুঁড়ে গাড়ির কাঁচ ভেঙে দেয়।

তখন গাড়ির মানুষ আর ওই কাশ্মীরিদের সাথে চরম বাগবিতণ্ডা বেঁধে যায়। অভিযোগ, সেই সময় কাশ্মীরিরা পাকিস্তান জিন্দাবাদ এর স্লোগান দেয়। হস্টেলের পাশে কলেজ গ্রাউন্ডে থাকা কিছু ছাত্র পাকিস্তান জিন্দাবাদ স্লোগান শুনেই ক্ষেপে ওঠে।

তারপর দেখতে দেখতে সব স্টুডেন্ট একত্রিত হয়। তাঁরা হস্টেলে পৌঁছে কাশ্মীরিদের থেকে পাকিস্তান এর স্লোগান দেওয়ার জন্য জিজ্ঞাসাবাদ চালায়। আর এই কথা নিয়েই দুই দলের চরম মারপিট বেঁধে যায়। দুই তরফ থেকেই পাথরবাজি চলে।

ঘটনার কথা কানে যেতেই, পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে যায়। পুলিশ স্টুডেন্টদের উপর লাথি চার্জ করলেই তাঁরা আরও উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। স্টুডেন্টরা পুলিশের বিরুদ্ধে প্রদর্শন করা শুরু করে দেয়। তারপর প্রচুর পরিমাণে পুলিশ মোতায়েন করা হয় ওই হোস্টেল আর কলেজ ক্যাম্পাসে।

ঝামেলা চলাকালীন কিছু ছাত্র কলেজের ছাদে উঠে তিরঙ্গা উত্তলন করে। অনেক স্টুডেন্ট তিরঙ্গা হাতে নিয়ে, হিন্দুস্তান জিন্দাবাদ আর পাকিস্তান মুর্দাবাদ এর স্লোগান দিতে থাকে। অনেক সময় পর্যন্ত কলেজ ক্যাম্পাসে ভারত মাতা কি জয় ধ্বনি শোনা যায়। ছাত্ররা বাইরে বেড়িয়ে প্রদর্শন করার চেষ্টা চালালে, পুলিশ তাঁদের বেশিদূর এগোতে দেয়না।

8 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.