Press "Enter" to skip to content

জয় শ্রী রাম শ্লোগান দিয়ে ফিরে এলো হিন্দুধর্মে! ত্রিপুরায় ৯৮ জন ব্যাক্তি ফিরে এলেন সনাতন হিন্দুধর্মে।

কংগ্রেসের ৬০ বছর রাজত্বকালে সবথেকে বেশি ক্ষতি হয়েছে হিন্দুদের। বিশেষ করে সোনিয়া গান্ধীর আমলে(মনমোহন সিং প্ৰধানমন্ত্রী থাকাকালীন) দেশের হিন্দুদের সবথেকে বেশি ক্ষতি করা হয়েছে। কংগ্রেস তাদের শাসনকালে ভারতের উত্তরপূর্ব বহুল রাজ্যগুলিকে খ্রিষ্টান বহুল করার পথে অনেকটা এগিয়ে গেছে। সোনিয়া গান্ধীর(আন্তোনিয়া মাইনো) নেতৃত্বে সুপরিকল্পিতভাবে ঝাড়খন্ড, বিহার ও উত্তরপূর্ব ভারতে ধর্ম পরিবর্তনের ধান্দা চালাতো খ্রিস্টান মিশনারিরা। প্রাথমিকভাবে কংগ্রেস সরকার উত্তরপূর্ব ভারতে বিকাশের কার্য সম্পূর্ণভাবে বন্ধ করে দিয়েছিল যার ফলস্বরূপ গরিবি সংখ্যা এই রাজ্যগুলিতে প্রচুর পরিমানে বেড়ে গেছিলো। এরপর সাহায্যের করার নাম করে ঢুকে পড়ে খ্রিষ্টান মিশনারিরা। মানুষের পাশে দাঁড়ানোর নামে চলে তীব্র গতিতে ধর্ম পরিবর্তনের ধান্দা।

তবে এখন দেশে মোদী সরকার এসেছে, সরকার উত্তরপূর্ব ভারতের বিকাশের উপর জোর দিয়েছে। উত্তরপূর্ব ভারতের প্রত্যেক রাজ্যে এয়ারপোর্ট নির্মাণ, সড়ক নির্মাণ, কর্মসংস্থান তৈরির মতো গুরুপূর্ণ কাজে জোর দিয়েছে। ফলস্বরূপ টাকার লোভে, চাকরির লোভে মিশনারিদের ফাঁদে পা দেওয়া মানুষজন ধীরে ধীরে পুনরায় সনাতন হিন্দু ধর্মে ফিরে আসতে শুরু করেছে।

জানিয়ে দি, ত্রিপুরার উনাকোটি জেলার রাঁচি পাড়া গ্রামে বিগত রবিবার দিন ২৩ টি অধিবাসী পরিবারের ৯৮ জন লোক পুনরায় হিন্দু ধর্মে ফিরে এসেছেন। এর জন্য স্থানীয় এক হিন্দু সংগঠন এক কার্যক্রমের আয়োজন করেছিল। এই কার্যক্রমে বিশ্বহিন্দু পরিষদের লোকজনও উপস্থিত ছিল। এই কার্যক্রমে পুরো রীতিনীতি মেনে পুজো পদ্ধতি পালন করে খ্রিস্টান ধর্মে কনভার্ট হওয়া অধিবাসীদের পুনরায় সনাতন হিন্দু ধর্মে ফিরিয়ে আনা হয়। অধিবাসীরা জয় শ্রী রাম নাম করে স্বধর্মে ফিরে আসেন।

খ্রিষ্টান মিশনারিরা উদার হিন্দুদের ধর্ম পরিবর্তন করিয়ে খ্রিষ্টান করার পর তাদের দিয়ে নানা কুকাজ করাতো বলে অভিযোগ উঠেছে। উদার হিন্দুদের মূর্খ বানিয়ে তাদেরকে দিয়েই তাদের নিজস্ব ভারতীয় সঙ্গস্কৃতি ধ্বংস করানোর কাজ করাতো। কিছুদিন আগেই ওই গ্রামে এক ষাঁড়ের হত্যা করা হয়েছিল, ওই ষাঁড়েকে স্থানীয় হিন্দুরা ভগবান শিবের বহন মনে করে পালন করতো। কিন্তু হিন্দুদের আস্থার উপর আঘাত হানার জন্য চক্রান্ত করে ষাঁড়টিকে মেরে ফেলা হয়েছিল।

পাঠকদের কাছে প্রশ্নঃ হিন্দুদের মধ্যে ধার্মিক সচেতনা আনার জন্য কি কি পদক্ষেপ নেওয়া উচিত?

8 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.