Press "Enter" to skip to content

PM মোদীর বন্ধু নাফতালি বেনেট ভারতকে নিয়ে বললেন মন ছুঁয়ে যাওয়া কথা, শুনে হবে গর্ব

নয়া ঃ ইসরায়েল (Israel) আরও একবার পরিস্কার জানিয়ে দিল যে, ভারতের (India) সঙ্গে তাদের সম্পর্ক অনেকটাই গভীর। ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেনেটের (Naftali Bennett) মতে, যখনই ভারত আর ইসরায়েল একসঙ্গে হয়, তখনই গুরুত্বপূর্ণ কোনও কিছু দেখা যায়। পাশাপাশি উনি খুব শীঘ্রই ভারত সফরে আসার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন। নাফতালি বেনেট বলেন, কিছুদিন আগেই আমার বন্ধু ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছিলাম। ওনার সঙ্গে ভারত-ইসরায়েলের সম্পর্ক আরও দৃঢ় করা যায় কীভাবে, সেটা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। প্রযুক্তির ক্ষেত্রে সহযোগিতার মাধ্যমে, আমরা আমাদের একচেটিয়া অংশীদারিত্বকে উদ্ভাবনের পাওয়ার হাউসে রূপান্তর করতে পারি।

ব্যাঙ্গালুরু টেক সম্মেলনে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনেট নিজের ভিডিও সম্বোধনে বলেন, প্রযুক্তি শুধু মানুষের জীবনে সাহায্যই করে না, এটা মানুষের জীবন বাঁচাতেও কাজে লাগে। যদি দুই দেশ মিলে কাজ করে আর মাথা খাটায়, তাহলে অনন্ত অবসর রয়েছে। উনি আরও বলেন, ভারত বিশ্বের সবথেকে বড় দেশ, সবথেকে বড় অর্থনীতির মধ্যে একটি আর ডিজিটাল ক্ষেত্রেও অগ্রণী ভূমিকা পালন করে। আর ইসরায়েল বিশ্বের সেরা আবিষ্কারক দেশের মধ্যে একটি। আর এই কারণেই ভারত আর ইসরায়েল যখনই একসঙ্গে হয় তখন অদ্ভুত জিনিস হয়।

সম্প্রতি COP26 জলবায়ু শিখর সম্মেলনে নাফতালি বেনেট আর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সাক্ষাৎ হয়েছিল। সেই সময় বেনেট নরেন্দ্র মোদীকে বলেছিলেন, আপনি ইসরায়েলে ব্যাপক জনপ্রিয়, আপনি আমার দলে দিন। এই সাক্ষাতের একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় হয়েছিল। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রীর এই প্রস্তাবে ওনাকে শুধু ধন্যবাদ জানিয়েছিলেন।

ইসরায়েলের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহুর (Benjamin Netanyahu) কার্যকালেও দুই দেশের সম্পর্ক ভালো মজবুত ছিল। নেতানিয়াহু আর PM মোদীর বন্ধুত্বও অনেক জনপ্রিয় ছিল। যদিও, দেশে রাজনৈতিক উথাল-পাথালের কারণে ওনাকে পদ ছাড়তে হয়। আর ওনার পদ ছাড়ার পরেই নাফতালি বেনেট দেশের নতুন প্রধানমন্ত্রী হন। যদিও পদত্যাগ না, নির্বাচনে পরাজয়ের পর নেতানিয়াহুকে প্রধানমন্ত্রী পদ ছাড়তে হয়েছিল।