Press "Enter" to skip to content

নিঃস্বার্থ পরিশ্রম ও অসাধারণ নেতৃত্বের জন্য ফিলিপ কোটলার পুরস্কার দ্বারা ভূষিত হলেন প্রধানমন্ত্রী মোদী।

প্রধানমন্ত্রী মোদীর নিঃস্বার্থ কাজের প্রশংসা এখন দেশ বিদেশের বিখ্যাত মানুষের  মুখে লেগে রয়েছে। এই কারণে আন্তর্জাতিক স্তরের বিভিন্ন সংস্থা প্রধানমন্ত্রী মোদীকে পুরস্কিত করতেও শুরু করেছে।সোমবার দিন দিল্লীতে নরেন্দ্র মোদীকে ফিলিপ কোটলার পুরস্কার দিয়ে ভূষিত করা হয়।  প্রধানমন্ত্রী কার্যালয় থেকে প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী, এই আয়ার্ড তিনটি বিষয়ের উপর ভূষিত ছিল-পিপল, প্রফিট ও প্ল্যানেট। এই পুরস্কার প্রত্যেক বছর কোনো না কোনো দেশকে প্রদান করা হয়। পুরস্কারের উদ্ধৃতিতে বলা হয়েছে যে  দেশের উৎকর্ষ নেতৃত্ব প্রদান করেছেন। এর অর্থ ক্লান্তিবিহীন শক্তি দিয়ে দেশের সেবা করার জন্য দেশের আর্থিক, সামাজিক ও প্রযুক্তিগতভাবে ব্যাপক উন্নতি হয়েছে। পুরস্কারের সাথে যে পত্র দেওয়া হয়েছে সেখানে লেখা রয়েছে- ভারতের পরিচয় এখন নতুনত্ব, তথ্যপ্রযুক্তি বিদ্যা, মেক ইন ইন্ডিয়া মত পেশাদার পরিষেবার কেন্দ্র হিসেবে ওঠে এসেছে।

উদ্ধৃতিতে পত্রে বলা হয়েছে যে প্রধানমন্ত্রী মোদী খুবই দূরদর্শী নেতা তথা পরবর্তী ১০০ বছরের জন্য ভারতকে কিভাবে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া উচিত তত সঠিক জ্ঞান রয়েছে প্রধানমন্ত্রী মোদীর মধ্যে। পত্রে লেখা হয়েছে প্রধানমন্ত্রী মোদীর দূরদর্শী  নেতৃত্বের জন্যেই ভারতে আধার কার্ড, ডিজিটাল ইন্ডিয়ার মতো কার্য সম্পন্ন হয়েছে।

উদ্ধৃতি অনুযায়ী, এখানে মেক ইন ইন্ডিয়া, স্টার্টআপ ইন্ডিয়া, ডিজিটাল ইন্ডিয়া ও স্বচ্ছ ভারত এর মতো পদক্ষেপের চর্চা করা হয়েছে। যার মাধ্যমে ভারত ধীরে ধীরে পুরো বিশ্বের সবথেকে আকর্ষক উৎপাদন ও বানিজ্যিক কেন্দ্রে পরিণত হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর স্বার্থহীন ও ক্লান্তহীন পরিশ্রম দেশের সামাজিক, অর্থনৈতিক বিকাশে জোয়ার এনেছে।

প্রফেসর ফিলিপ কোটালার নর্থইস্টার্ন ইউনিভার্সিটির কেলঙ স্কুল অফ ম্যানেজমেন্ট এর বিশ্বপ্রসিদ্ধ  অধ্যাপক। উনি অসুস্থ থাকায় আমেরিকার জর্জিয়া ইউনিভার্সিটির ডক্টর জগদীশ শেঠকে পাঠিয়েছিলেন নরেন্দ্র মোদীকে পুরস্কার প্রদানের জন্য। প্রধানমন্ত্রী মোদীর অসাধারণ নেতৃত্বের জন্যেই উনাকে এই পুরস্কারের জন্য বাছাই করা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

10 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.