Press "Enter" to skip to content

আফরিনের প্রশংসায় কেন মুখরিত প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী? জানলে অবাক হবেন।

হয়ে গেল ৪৬ তম মন কি বাত অনুষ্ঠান। গতবারের মত এবারও সেখানে নিজের বক্তব্য পেশ করলেন দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী মহাশয়। কিন্তু এবারের মন কি বাত অনুষ্ঠানের বিশেষ আকষণ হল তিনি এবার সেখানে বক্তব্য রাখার সময় নিলেন নামে এক বালিকার নাম। কিন্তু এই কে? কেনই বা প্রধানমন্ত্রী তার নাম নিলেন মন কি বাত অনুষ্ঠানে? এখন এই প্রশ্ন গুলি ঘোরাঘুরি করছে দেশের সংবাদ মাধ্যম গুলির কাছে। এমনকি সোশ্যাল মিডিয়াতেও এর আলোচনা তুঙ্গে। জানা গিয়েছে, প্রধানমন্ত্রী তার মন কি বাত অনুষ্ঠানে তার নাম নেওয়ার কারন হল এই মেয়েটির সাফল্য।

এই মেয়েটির সাফল্যকে বাকিদের অনুপ্রেরণা দেবার জন্যই তার নাম করেছেন মোদীজি। আফরিন শেখ নামে এই মেয়ে গুজরাতের এক রিক্সাচালকের মেয়ে। এই মেয়েটি এত দরিদ্র এবং প্রতিকূলতা মাথায় নিয়েও ৯৮.৩১শতাংশ নাম্বার নিয়ে গুজরাত বোর্ডের দশম শ্রেণির পরিক্ষায় কৃতকার্য হয়েছেন। দেশের প্রধানমন্ত্রীর মুখে নিজের নাম শুনে আফরিন শেখ জানান যে তিনি খুব খুশি যে দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর তার নাম করেছেন নিজের মুখে। আফরিন শেখ বড় হয়ে ডাক্তার হবার ইচ্ছা প্রকাশ করেন আফরিন। তার পরিবারও তার ইচ্ছাকে সম্মান করেন বলেই জানা যাচ্ছে।

সেই দিন আরও অনেকের কথা মোদীজির মুখে উঠে এসেছে তারা হলেন দিল্লির প্রিন্স কুমার, যিনি হলেন সরকারি স্কুলের টপার। তার বাবা একজন বাস চালক হওয়ার সত্ত্বেও তিনি বিজ্ঞান বিভাগে ৯৭শতাংশ নম্বর পেয়ে উচ্চমাধ্যমিক উত্তীর্ণ হয়েছেন।হরিয়ানায় এক চৌকিদারের ছেলে কার্তিক, যিনি ৫০০ এর মধ্যে ৪৯৮ পেয়ে পুরো হরিয়ানায় প্রথম স্থান অধিকার করেছেন। এছাড়া কলকাতাবাসী অভয় গুপ্তা, যিনি তার লড়াই চালিয়েছেন স্ট্রীট লাইটের নিচে পড়াশোনা করে। তার মুখে শোনা যায় স্কুল বাস চালকের মেয়ে খুশির কথা, খুশির প্রাপ্ত নাম্বার হল ৯৩.২শতাংশ।

ঝাড়খন্ডের রমেশ সাহু, যিনি পড়াশোনা করার পাশাপাশি নিজের পরিবারকে আর্থিকভাবে সাহায্য করার জন্য খেলনা বিক্রি করেন। গুরগাঁওয়ের অনুষ্কা, যিনি শারীরিক প্রতিবন্ধকতার জন্য পিছিয়ে থাকেননি বরং সেটাকে অনুপ্রেরণা হিসাবে কাজে লাগিয়ে এগিয়ে এসেছেন। এবং তিনি এখন সাফল্যের শ্রেষ্ঠত্ব লাভ করেছেন।
#অগ্নিপুত্র