Press "Enter" to skip to content

RSS এর অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ার পর এবার বিজেপির কার্যক্রমে যোগ দিলেন পূর্ব রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জী।

কয়েকমাস আগে পূর্ব রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জীর এর মঞ্চে যাওয়া নিয়ে খুব বিতর্ক হয়েছিল। এখন আর একবার সেই ধরনের বিবাদ উঠতে শুরু করেছে। আরো একবার প্রণব মুখার্জী কংগ্রেসকে ব্যাকফুটে নিয়ে এসেছে। (RSS)এর পর এবার বিজেপির এক কার্যক্রমে পৌঁছে যান। পাপ্ত খবর অনুযায়ী, পূর্ব রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জী বৃহস্পতি বার গুরুগাঁও এ বিজেপির এক কার্যক্রমে অংশ নেন। যেখানে উনার সাথে হারিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী মনোহর লাল খট্টর উপস্থিত ছিলেন। প্রণব মুখার্জী ও মনোহরলাল খট্টর গুরুগাঁও এর হরচন্দপুর ও নাওগ্রামে স্মার্ট গ্রাম পরিযোজনা এর অন্তর্গত কিছু প্রজেক্টের উদঘাটন করেন। পূর্ব রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জী নিজের কার্যকালের সময় হরচন্দপুর গ্রামকে দত্তক নিয়েছিলেন। যার পর থেকে গ্রাম বহু উন্নত হয়েছে এবং নানা সুযোগ সুবিধা লক্ষ করা গেছে।

এই গ্রামকে আদর্শ গ্রাম করার চেষ্টা করা হচ্ছে। গ্রাম সচিবালয়ে ওয়াইফাই থেকে ডিজিটাল স্ক্রিনে সুবিধা প্রদান করা হবে। জানিয়ে দি এই নিয়ে এটা দ্বিতীবার যখন প্রণব মুখার্জী বা বিজেপির সাথে জড়িত সংগঠনের কার্যক্রমে অংশ নেন। এর আগে প্রণব মুখার্জী আর এস এসে এর মুখ্য কার্যালয় নাগপুরে পা রেখেছিলেন। নাগপুরে আর এস এস এর মুখ্য অথিতি হিসেবে আসা প্রণব মুখার্জী নিজের ভাষণে রাষ্ট্র, রাষ্ট্রবাদ ও দেশভক্তির উপর নিজের বিচার ব্যাক্ত করেছিলেন।

প্রণব মুখার্জীর নাগপুরে যাওয়া নিয়ে উনার কন্যা শর্মিষ্ঠা মুখার্জী নিজের ক্ষোপ প্রকাশ করেছিলেন। কংগ্রেসের নেতারা একসুরে পূর্বরাষ্ট্রপতির RSS মঞ্চ যাওয়া বাতিল করার জন্য বলেছিলেন। কিন্তু কারোর কথায় কান না দিয়ে নাগপুরে RSS এর মঞ্চে প্রধান অথিতি হিসেবে পা রেখেছিলেন। জানিয়ে দি কংগ্রেস ও কংগ্রেসের কট্টরপন্থী সমর্থকরা বহুবার RSSএর মত রাষ্টবাদী দলকে জঙ্গি সংঘটন বলেছে কিন্তু নাগপুরে গিয়ে কংগ্রেসিদের মুখে ঝামা ঘষে দেন।

এখন RSS মঞ্চে এর পর বিজেপির মঞ্চে পা রাখলেন দেশের পূর্ব রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জী। জনালে অবাক হবেন রাহুল গান্ধী কিছুদিন আগে বিদেশে গিয়ে RSS এর নিয়ে বাজে মন্তব্য করে এসেছিলাম। রাহুল গান্ধীর দাবি ছিল সঙ্ঘে বলার কোনো স্বাধীনতা নেই। তাই RSS রাহুল গান্ধীকে অথিতি হিসেবে ডেকে পূর্ণ স্বাধীনতা দেওয়ার চিন্তা ভাবনা করছে বলে খবর এসেছিল। অর্থাৎ কংগ্রেসের RSS বিরোধী চিন্তাধারাকে ধরাশায়ী করার মাস্টারপ্লান করা হচ্ছে বলে সূত্রের খবর।