Press "Enter" to skip to content

পূর্নার্থীদের স্বাগত করার জন্য প্রস্তুত কুম্ভনগরী প্রয়াগরাজ ! রয়েছে এমন এমন সুযোগ সুবিধা জানলে প্রতিটি হিন্দু খুশি হয়ে যাবে !

আর মাত্র কয়েক দিন বাকি তারপরই শুরু হতে চলেছে পৃথিবীর সবচেয়ে বড়ো মেলা কুম্ভমেলা। এবার ের গঙ্গা, যমুনা ও সরস্বতী নদীর সংগমস্থলে অনুষ্ঠিত হতে চলেছে কুম্ভমেলা। আপনাদের জানিয়ে রাখি যে কুম্ভমেলা এতটাই বিখ্যাত যে এই মেলার আয়োজন শুরু হয়ে যায় প্রায় এক বছরেরও বেশি সময় আগে থেকে। তাই এবার প্রথমবার উত্তরপ্রদেশে বিজেপি পার্টি আসার ফলে তারা এই মেলা আয়োজনে কোনোরকম চেষ্টার ত্রুটি রাখেনি। বরং আগের সরকার সমাজবাদী পার্টি এর থেকে এবার অনেক ভালো আয়োজন করা হয়েছে কুম্ভমেলার। আপনারা জানলে সত্যি খুশি হবেন যে, এবার উত্তরপ্রদেশ সরকার এতটাই গুরুত্ব দিয়ে কুম্ভমেলার আয়োজন করেছে যে উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী তথা হিন্দুত্বের পোস্টার বয় জি নিজে বারবার সেখানে গিয়ে নজর রেখেছেন এই মেলার দিকে। বারবার সেখানে গিয়ে কাজকর্ম সমন্ধে দেখে এসেছেন। এমন কি তার মন্ত্রী সভার অনেক মন্ত্রীকেও সেখানে কাজকর্ম দেখার জন্য পাঠিয়েছিলেন।

সরকার অনুমান করছেন যে এবার মেলায় এতদিনের সব রেকর্ড ভেঙে যাবে। এবার খুব কম হলেও ১৩ কোটি পূর্নার্থী আসবেন বলে মনে করা হচ্ছে। উত্তরপ্রদেশের আগের সরকারের আমলে আগেরবার ভিড় কম হওয়ার সত্ত্বেও ২৯ জন লোকের মৃত্যু হয়েছিল। ১৬০ এর বেশি লোকজন গুরুত্বর ভাবে যখম হয়েছিল। তাই এবার যোগী সরকার খুবই সচেতন যাতে এবার সেইরকম কিছু ঘটনা সেখানে না ঘটে। কারন এবারের ভিড় আগের থেকে অনেক বেশি।

এছাড়াও এবার ভারতীয় রেলের তরফে সক্রিয় ভূমিকা নেওয়া হবে। তীর্থযাত্রীদের এবং পর্যটকদের যাতে কোনোরকম অসুবিধা না হয় সেই দিকে রেল নজর রাখবেন। এবং এবার অনেক বেশি পরিমানে রেলের বন্ধোবস্ত করা হবে ভারতীয় রেলের তরফে যাতে যাতাযাতের ক্ষেত্রে কোনো অসুবিধা না হয়। এছাড়াও দূরের যাত্রীদের জন্য অনেক দূরপাল্লা ট্রেনের ব্যাবস্থা করবে ভারতীয় রেল।

এছাড়াও দূরের তীর্থযাত্রীদের আশ্রয়ের জন্য একটি বিশেষ আশ্রমের ব্যাবস্থা করা হয়েছে। যেখানে একসাথে ১০ হাজার মানুষ থাকতে পারবেন। এই আশ্রমে থাকবে টিকেট কাউন্টার, ভেন্ডিং স্টল, PA সিস্টেম, জলের বুথ, এলসিডি টিভি, সিসিটিভি সঙ্গে থাকছে নারী এবং পুরুষদের জন্য আলাদা আলাদাভাবে টয়লেট এর ব্যাবস্থা। এছাড়াও যানবাহনের পার্কিং জন্য ১১ লক্ষ্য হেক্টর জমিতে ১২০ টি পার্কিং স্পেস তৈরি করা হবে যাতে থাকছে একসাথে ৬ লক্ষ্য যানবাহন থাকার মত ব্যাবস্থা। আপনাদের জানিয়ে রাখি আগের বার অর্থাৎ ২০১৩ সালে অখিলেশ যাদব মাত্র ৯৯ টি পার্কিং স্পেস করেছিল যার ফলে খুবই বোগান্তি হয়েছিল সাধারণ মানুষের। এছাড়াও যোগী সরকার পূর্নাথীদের জন্য বিনামূল্যে গেরুয়া বাসের বাসের ব্যাবস্থা করেছে।

এবারে বিশেষ ভাবে একটা পার্কিং জোন করা হবে যেখানে থাকবে ৪২ টি ড্রোন। যার ফলে সেগুলির মাধ্যমে পুরো মেলায় নজরদারি চালানো যাবে। এবার মেলায় প্রতিদিন প্রায় ১২ লক্ষ্য ভক্ত স্নান করবেন তাই ভিড় যাতে কম করা যায় সেই জন্য পুরো এলাকাটিকে ২২ টি সেক্টরে ভাগ করা যাবে।
#অগ্নিপুত্র