ক্রিষ্টান ধৰ্মমতে বিয়ে করার সময় প্রিয়াঙ্কা চোপড়া করলেন এমন কাজ, যা জানলে প্রত্যেক হিন্দু রেগে লাল হবেন।

রাজস্থানের যোধপুরে ফ্লিমবাজ প্রিয়াঙ্কা চোপড়া, আমেরিকান ফ্লিমবাজ নিক জোনাসের সাথে ক্রিষ্টান ধৰ্মমতে বিয়ে করে নিয়েছেন। প্রিয়াঙ্কা চোপড়া অনেক আগেই হিন্দু ধৰ্ম ত্যাগ করে ক্রিষ্টানে পরিণত হয়েছে। বিগত কয়েকমাস ধরে নিক জোনাস ও প্রিয়াঙ্কার সম্পর্কের কথা শোনা যাচ্ছিল, এখন তারা খ্রিস্টান ধৰ্মমতে বিয়ে করে নিয়েছেন। নিক জোনাস তার পুরো পরিবারের সাথে ভারতে এসেছে এবং এই বিয়ে যোধপুরের উমিদ ভবন মহলে সম্পন্ন হয়েছে। লক্ষণীয় বিষয় এই যে, বিয়ের সম্পন্ন হওয়ার পর টানা ২ ঘন্টা ধরে আতশবাজি করা হয়। কয়েক লক্ষ টাকার ফটকা, বাজি ফাটানো হয়েছে। তবে কিছুজনের মতে এই বাজি বিদেশ থেকে আনা হয়েছিল যার মূল্য কোটির অংকে। লাগাতার ২ ঘন্টা ধরে যে আতশবাজি করা হয়েছিল তার একটা ভিডিও সংবাদ সংস্থা ANI জারি করেছিল।

স্মরণ করিয়ে দি, এটা সেই প্রিয়াঙ্কা চোপড়া যিনি কিছুদিন আগে বাজি মুক্ত দীপাবলি পালনের জন্য হিন্দুদের জ্ঞান দিচ্ছিলেন। মাত্র কয়েক সপ্তাহ আগেই প্রিয়াঙ্কা চোপড়া টিভি মাধ্যম ও সোশ্যাল মিডিয়ায় এসে আতশবাজি মুক্ত, বায়ু দূষণ মুক্ত দীপাবলি পালনের জন্য হিন্দুদের জ্ঞান দিচ্ছিলেন। এখন সেই প্রিয়াঙ্কা নিজের বিয়েতে টানা ২ ঘন্টা ধরে বাজি ফাটিয়ে বায়ু দূষণ করে তার আসল রূপ দেখিয়ে দিলেন। ক্রিষ্টান ধর্মকে আপন করে নেওয়া প্রিয়াঙ্কার কাছে হিন্দু উৎসবে আতশবাজি করা পরিবেশ বিরোধী কাজ কিন্তু নিজের বিয়েতে আতশবাজি করা উচিত কাজ।

প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার বিয়েতে আতশবাজি করা নিয়ে বুদ্ধিজীবী বর্গ, মিডিয়া ও আইনের রক্ষাকর্তা সকলেই মুখে লাগাম লাগিয়েছে। হিন্দু বিরোধী এই পুরো গ্যাং এখন দূষণ শব্দ মুখে আনতেও নারাজ। অথচ এই পুরো গ্যাং দীপাবলি শুরু হওয়ার ১ মাস আগে থেকে বাজি মুক্ত দীপাবলি পালনের জন্য লাগাতার প্রচার চালিয়েছিল।

দীপাবলীর সময়কালে বাজি ফাটানোর জন্য পুলিশ বহু হিন্দুকে গেপ্তার করে জেলে পর্যন্ত ঢুকিয়ে দিয়েছিল। মনে করিয়ে দি, এটা সেই প্রিয়াঙ্কা চোপড়া যিনি তারা একটা সিরিজে ভারতীয় হিন্দুদের আতঙ্কবাদী ও পাকিস্থানিদের নিরীহ সাজিয়ে ছিলেন।

Leave a Reply

Open

Close