Press "Enter" to skip to content

CBI তদন্ত আটকাতে বাংলা জুড়ে গুন্ডাগিরি শুরু করলো TMC পার্টি! রেল অবরোধ, সড়ক জ্যাম করতে নেমেছে উন্নয়নবাহিনী।

TMC কোনো গণতান্ত্রিক পার্টি নয়, এটা এক নেতা পরিচালিত পার্টি। এই পার্টিতে সমস্তকিছুই মমতার ইচ্ছা ও নির্দেশে চলে। গতকাল মমতার নির্দেশ মতো কলকাতা পুলিশ রীতিমত গুন্ডাগিরি করে দেশের সবথেকে বড় সংবিধানিক সংস্থা CBI এর কাজে বাধা দেয়। CBI এর আধিকারিকদের মারধর করে কলকাতা পুলিশ আটক করে। চিটফান্ড ঘটনায় গরিব মানুষের টাকা লুটে বহু কোটি টাকার দুর্নীতির উপর তদন্ত করার জন্য CBI আধিকারিকরা পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারের বাড়ির কাছে উপস্থিত হয়েছিল। আর সেখানেই কলকাতা পুলিশ CBI আধিকারিকদের উপর আক্রমন করে আটক করে। এরপর কেন্দ্র সরকার CRPF নামিয়ে পুলিশের গুন্ডাগিরি বন্ধ করে।

জানিয়ে দি, CBI এর বিরোধ করে মমতা ব্যানার্জী ধর্নায় বসেছে। তৃণমূলের গুন্ডাবাহিনীও মমতার সমর্থনে সক্রিয় হয়ে কাজ শুরু করেছে। কাল রাত থেকে তৃণমূলের কার্যকর্তারা রেল লাইন অবরোধ শুরু করেছে। আজ সকাল হতে হতে সেই কাজে আরো সক্রিয় হয়ে উঠেছে গুন্ডাবাহিনী। বাংলার দালাল মিডিয়া খবরটিকে চাপার জন্য লেগে পড়েছে। বাংলার মিডিয়া ঘটনাটিকে সম্পূর্ন অন্যভাবে দেখানোর জন্য লেগে পড়েছে।

প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী, TMC এর লোকজন রাজ্যের বিভিন্ন স্থানে রেল অবরোধ করতে শুরু করেছে, রাজ্যের জাতীয় সড়ক অবরোধ করতে শুরু করেছে। CBI এর হাত থেকে অভিযুক্তদের বাঁচানোর প্রথমে পুলিশ এবং এখন গুন্ডাবাহীনি নামিয়ে মমতা। হুগলির তারেকেশর, রিষড়া, হাওড়া-আমতা রেল শাখা, আসানসোল ডাসি স্টেশনে, বাঁকুড়ার গঙ্গাজল ঘাঁটির জাতীয় সড়কে মতো গুরুত্বপূর্ন স্থানে অবরোধ শুরু করেছে গুন্ডাবাহিনী।

পশ্চিমবঙ্গে মমতার সরকার, মমতার প্রশাসন, মমতার পুলিশ তা সত্ত্বেও চিটফান্ডের চোরদের বাঁচানোর জন্য মমতা উন্মাদী কট্টরপন্থীদের নামিয়ে দিয়েছে। মমতা CBI তদন্ত বন্ধ করার জন্য সাধারণ মানুষের নিত্যযাত্রার উপর বাধা প্রদান করতে উদ্যোগী হয়েছে। এখন এই ইস্যুতে কেন্দ্র ও CBI কি পদক্ষেপ নেয় তা দেখার বিষয়।

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.