Press "Enter" to skip to content

কাশ্মীরে জঙ্গি হামলা নিয়ে ঘৃণ্য রাজনীতি শুরু করে দিলো কংগ্রেস, এই কাজের ফলে চারিদিকে উঠছে ছিঃ ছিঃ রব

আজ আমাদের দেশের জন্য চরম দুঃখের । আজ জম্মু কাশ্মীরের পুলওয়ামা জেলায় জঙ্গিরা সেনার কনভয়ে হামলা করে আমদের প্রায় ৪০ জন নিরীহ জওয়ানকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেয়। জম্মু শ্রীনগর হাইওয়ে তে সেনার কনভয়ে আইইডি হামলা করেছিল পাক মদতপুস্ট জঙ্গিরা। সেনার ওই কনভয়ে ৭০ এর উপরে গাড়ি ছিল। আর ২৫০০ সেনা জওয়ান ছিল।

জঙ্গি হামলার পর প্রায় ৪০ জন সেনা শহীদ হন, যদিও আধিকারিক ভাবে এখনো কতজন সেনা শহীদ হয়েছে সেটা জানান হয়নি। জঙ্গিদের এরকম কাপুরুষের মত হামলার পর শুধু দেশ না বিদেশেও শোকের ছায়া পরে গেছে। আর চারিদিকে পাকিস্তান এবং জঙ্গি সংগঠন গুলোর নামে ছিঃ ছিঃ রব উঠছে।

এই ঘটনার পর প্রধানমন্ত্রী টুইটারে শোক ব্যাক্ত করে ঘটনার নিন্দা করেছেন। এবং শহীদদের রক্ত ব্যার্থ যাবেনা বলে জানিয়েছেন তিনি। বিদেশ রাজ্য মন্ত্রী এবং প্রাক্তন সেনা অফিসার জেনারেল ভি.কে সিং ও এই ঘটনার নিন্দা করে কড়া প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, এই ঘটনার পর একজন ভারতীয় আর সৈন্য হিসেবে আমার রক্ত ফুটছে, এই ঘটনার বদলা নেওয়া হবে। কাউকে ছাড়া হবেনা।

কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুন জেটলি বলেছেন, জঙ্গিদের এই ঘৃণ্য কাজের নিন্দা জানাচ্ছি। এবং এর বদলা এমন ভাবে নেব, যে ওরা আজীবন মনে রাখবে। শুধু এরাই না, দেশের প্রতিটি মানুষ এবং নেতারা এই ঘটনার নিন্দা জানিয়ে শহীদদের প্রতি সহানুভূতি ব্যাক্ত করেছেন।

কিন্তু কংগ্রেস এই ঘটনার পর রাজনীতি করতে ব্যাস্ত হয়ে গেছে। কংগ্রেসের মুখপাত্র রণদীপ সুরজেওয়ালা টুইট করে শহীদদের প্রতি সহানুভূতি জানালেও কেন্দ্র সরকারের উপর দোষ চাপিয়েছে। উনি জানতে চেয়েছেন এই ঘটনার বদলা কবে নেওয়া হবে?

আপনাদের জানিয়ে রাখি এরা হল সেই দল, যারা উরি হামলার পর সেনার করা স্যার্জিক্যাল স্ট্রাইক নিয়ে সন্দেহ করেছিল। এমনকি এরা প্রমাণ স্বরুপ ভিডিও দেখতে চেয়েছিল। আমেরিকার স্যাটেলাইটে যখন স্যার্জিক্যাল স্ট্রাইক নিয়ে কিছু ছবি প্রকাশ করা হয়েছিল। তখনও এরা বিশ্বাস না করে সেনা আর কেন্দ্র সরকারের উপর সন্দেহ করেছিল।

আর এখন এই ঘটনার পর তাঁরা সেই রাজনীতি করতেই ব্যাস্ত! মনে রাখবেন ২৬/১১ হামলার সময় কেন্দ্রে কংগ্রেস সরকার ছিল। তখন বিরোধী দল বিজেপি সরকারের উপরে প্রশ্ন না তুলে সরকারের পাশে দাঁড়িয়েছিল। কিন্তু এরা তো কংগ্রেস, তাই এরা দেশ পরে আর রাজনীতিকে আগে মনে করে। যদিও ওনার ওই টুইটের পর ওনাকে নিয়ে টুইটারে ছিঃ ছিঃ রব পরে গেছে। কিন্তু এতে ওনার কিছু যায় আসেনা। একটার পর একটা টুইট করে উনি এখনো রাজনীতি করেই চলেছেন।

8 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.