মুখ পুড়লো রাহুল গান্ধীর! ভুয়ো অডিও টেপ চালিয়ে দেশবাসীকে মূর্খ বানাতে গিয়ে হাতেনাতে ধরা পড়লেন কংগ্রেস সভাপতি।

একটা মিথ্যাকে বার বার কারোর মাথায় ঢোকালে সেটা সত্য মনে হয়। রাফেল নিয়ে ঠিক এমন চাল চেলেছিল কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। আসলে রাফেল নিয়ে মিথ্যা যুক্তি তর্কের ভিত্তিতে মোদী সরকারকে ঘিরতে চেয়েছিল রাহুল গান্ধীর গ্যাং। কিন্তু রাফেল নিয়ে প্রত্যেক স্তরে থাপড় খেল রাহুল গান্ধী। রাষ্ট্রপতি থেকে শুরু করে বায়ু সেনাপ্রধান, এমনকি দেশের সুপ্রিম কোর্ট পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছে যে রাফেল নিয়ে কোনো দুর্নীতি হয়নি। অবশ্য তাতেও মন ভরেনি রাহুল গান্ধীর। রাহুল গান্ধী ও তার সমর্থকেরা সরাসরি সুপ্রিম কোর্টের বিরোধিতা করেন এবং রাফেলে দুর্নিতি রয়েছে বলে অভিযোগ করেন।

রাফেল দুর্নীতি আছে তা প্রমান করার জন্য তিনি একটা গোপন অডিও টেপ সকলের সামনে প্রকাশ করবেন বলে জানিয়েছিলেন। রাফেল নিয়ে কোনো দুর্নীতি নেই এমন প্রমান উঠে এসেছিল সবদিক থেকে। কিন্তু তা সত্ত্বেও অডিও টেপ নিয়ে সাংসদে উপস্থিত হয়েছিলেন রাহুল গান্ধী। রাহুল গান্ধী অডিও চালানোর জন্য সভাপতি সুমিত্রা মহাজনের কাছে অনুমতি চান।

জানিয়ে দি, রাহুল গান্ধীর সেই তথাকথিত অডিও তার আগেই সব জায়গায় ছড়িয়ে পড়েছে এবং অডিও ভুয়ো তাও প্রমান হয়ে গেছে। সুমিত্রা মহাজন রাহুল গান্ধীকে অডিওর সত্যতা প্রমাণ করে তা ফাইল করতে বলেন। কিন্তু অডিও ভুয়ো হওয়ায় শেষমেষ হোঁচট খেতে হয় রাহুল গান্ধীকে।

রাহুল গান্ধী অডিও এর বক্তব্য লিখিত আকারে পড়ার জন্য আবেদন জানিয়েছিলেন। কিন্তু অধ্যক্ষা বলেন লিখিত ভাবে অডিও এর সত্যতা প্রকাশ করুন। আর এই কথাতেই পিছিয়ে পড়েন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। রাহুল গান্ধীর সাথে ঘটা এই ঘটনা নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় চর্চা শুরু হয়ে গিয়েছে। অন্যদিকে দেশের বিক্রিত দালাল মিডিয়া এই খবর অন্যভাবে জনগণের কাছে পরিবেশন করতে শুরু করেছে। মিডিয়া দেশবাসীকে জানাচ্ছে যে সুমিত্রা মহাজন অডিও টেপ চালানোর অনুমতি দেননি।

Leave a Reply

you're currently offline

Open

Close