Press "Enter" to skip to content

“প্রধানমন্ত্রী হওয়ার জন্য তন্ত্রমন্ত্র ও কুসংস্কারের সাহায্য নিচ্ছেন রাহুল গান্ধী।”

দেশের প্রধানমন্ত্রী পদে বসার জন্য পাগল হয়ে উঠেছেন রাহুল গান্ধী আর সেই জন্যেই ২০১৯ নির্বাচন সামনে আসার সাথে সাথে ভোটব্যাঙ্ক তৈরির জন্য মাঠে নেমে পড়েছে রাহুলের টিম। কিছুদিন আগেই মোদী সরকারকে টক্কর দেওয়ার জন্য রাহুল গান্ধী ও তার সহযোগী দল কেন্দ্রের বিরুদ্ধে অবিশ্বাস প্রস্তাব এনেছিল যদিও সেই ভোটাভুটিতে হেরেছিল রাহুল গান্ধীর দল। কিন্তু অবিশ্বাস প্রস্তাবের দিন এমন কিছু ঘটনা ঘটেছিল যা নিয়ে রাজনীতি এখনো চরমে। আসলে রাহুল গান্ধী অবিশ্বাস প্রস্তাবের দিন ভাষণের শেষে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কাছে গিয়ে গলায় জড়িয়ে পড়েন। রাহুল গান্ধির কান্ড দেখে চমকে যান প্রধানমন্ত্রী সহ উপস্থিত সকলে । শুধু তাই নয় এরপর প্রধানমন্ত্রীর গলায় পড়ার পর আসনে বসে তার এক সহযোগীকে চোখ মারেন রাহুল গান্ধী।

আর এই বিষয় নিয়ে এখন এমন রহস্য বেরিয়ে এসেছে যা সকলকে চমকে দিয়েছে। আসলে দিল্লির বিজেপির প্রবক্তা তেজেন্দ্র সিংহ জানিয়েছেন যে রাহুল গান্ধী এক তান্ত্রিকের কথা মতো প্রধানমন্ত্রীর গলায় পড়েছিলেন। তেজেন্দ্র সিংহ বলেন রাহুল গান্ধীকে তান্ত্রিক বলেছিলেন যে যদি তিনি প্রধানমন্ত্রীর আসন স্পর্শ করেন তাহলে তার প্রধানমন্ত্রী হওয়ার যোগ মুজবুত হবে।

এক যুবা কংগ্রেসি সাংসদ একথা তেজেন্দ্র সিংকে জানিয়েছে বলে সূত্রের খবর। ভাষণ শেষ হওয়া মাত্র প্রধানমন্ত্রীর আসন স্পর্শ করার পরামর্শ দিয়েছিলেন তান্ত্রিক বলে দাবি তেজেন্দ্র সিং এর। আপনাদের জানিয়ে রাখি এক মিডিয়ার কাছে এই তথ্য জানান উনি। তবে এখন অনেকের দাবি খ্রিস্টান ধর্মগুরুর কথা মতো ঐই কাজ করেছিলেন রাহুল গান্ধী। কারণ রাহুল গান্ধী উপরে উপরে হিন্দু ধর্ম দেখালেও উনি একজন খ্রিস্টান ধর্মাবলী ব্যাক্তি।

তেজেন্দ্র সিং বলেন যদি যুব কংগ্রেসের ওই সংসদের কথা সঠিক হয় তাহলে শাসনক্ষমতার লোভে তন্ত্রমন্ত্র ও কুসংস্কার এর সাহায্যে নেওয়া অত্যন্ত নিন্দনীয়। তেজেন্দ্র সিং বলেন যে এব্যাপারে রাহুল গান্ধীর খোলাখুলি সাফাই দেওয়া উচিত কারণ তার দলের সংসদ এই কথা ফাঁস করেছেন।