Press "Enter" to skip to content

“১৫ মিনিট ছাড় দেশদ্রোহী ওয়েসী, এসে ৫ মিনিট লড়াই কর, দেখবো কে বেঁচে থাকে”: রাজা সিং।

হায়দ্রাবাদ এমন একটা এলাকা যেখানে মুসলিম জনসংখ্যা ৬০% পৌঁছে গেছে এবং হিন্দু জনসংখ্যা ৩৫% এবং ৫% জৈন সম্প্রদায় রয়েছে। এখানের সবথেকে বেশি মুসলিমবহুল এলাকা ওল্ড হায়দ্রাবাদ নামে পরিচিত।এখানেই কট্টরপন্থী নেতা আসাউদ্দিন ওয়েসী ও তার ভাই তাদের গতিবিধি চালায়। তবে পুরো হায়দ্রাবাদে ঘোরার সাহস এই ওয়েসী ভাইদের নেই। শুধুমাত্র ওল্ড হায়দ্রাবাদ থেকেই চিৎকার চেঁচামেচি করে এই দুই কট্টরপন্থী। কিন্তু দেশের মিডিয়া এই নেতাদের বিশেষ করে বড়ো ওয়েসীকে রাষ্ট্রীয় নেতা হিসেবে জনগণের সামনে পেশ করে। স্মরণ করিয়ে দি, সেই ব্যক্তি যে ১৫ মিনিটে ভারতের হিন্দুদের শেষ করে দেওয়ার কথা বলেছিল। আকবরউদ্দিনের বক্তব্য ছিল, যদি ১৫ মিনিটের জন্য পুলিশ সরে যায় তাহলে ভারতের ১০০ কোটি হিন্দুদের শেষ করে দেব।

তবে হায়দ্রাবাদের এক বিজেপি নেতা ও সাংসদ ওয়েসীর দুই ভাইকে খোলাখুলি চ্যালেঞ্জ দিয়ে দিয়েছেন। বলেছেন, “ওয়েসী ১৫ মিনিট অনেক সময় হয়, আমি আমার সুরক্ষা ছাড়ছি তুই তোর সুরক্ষা ছাড়। আর LB স্টেডিয়ামে এসে ৫ মিনিট লড়াই করে না, দেখা যাবে কে বেঁচে থাকে।” ওয়েসীকে দেশদ্রোহী আখ্যা দিয়ে বলেন, ভারত দেশ হিন্দুদের, আর এখানে থাকতে হলে ভারত মাতার জয়, বন্দেমা তারম বলতেই হবে।

আকবরউদ্দিন ওয়েসী ১৫ মিনিটে হিন্দুদের শেষ করার কথা বলেছিল।তবে রাজা সিং বলেছেন ১৫ মিনিট নয় ৫ মিনিটের জন্য নিজের নিজের সুরক্ষা ছেড়ে লড়াই করে নে তাহলে কে বেঁচে থাকে বুঝে জাবি। জানিয়ে দি, ওল্ড হায়দ্রাবাদে ৯৫% মুসলিম থাকে যেখানে ওয়েসী চিৎকার করে এবং নিজেকে শক্তিশালী দেখানোর চেষ্টা করে। আগের অন্ধ্র ও বর্তমানের তেলেঙ্গানাতে বরাবর সেকুলার অর্থাৎ হিন্দু বিরোধী সরকার ছিল যার কারণে ওয়েসীর মতো নেতারা গতিবিধি চালাতে পারে।

হায়দ্রাবাদে কট্টরপন্থীরা যখন তখন হিন্দুদের উপর আক্রমণ করতে পারে কিন্তু শুধুমাত্র রাজা সিং এর মতো নেতাদের কারণে কট্টরপন্থীরা হিন্দুদের কাছে ভিড়তে ভয় পায়। বিগত দিয়ে যোগী আদিত্যনাথ হায়দ্রাবাদে গিয়ে বলেছেন, যদি তেলেঙ্গানায় বিজেপি ক্ষমতায় আসে তাহলে ওয়েসী এমনিতেই পলায়ন করবে।

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.