Press "Enter" to skip to content

যে যতই চেষ্টা করুক ,অবৈধ অনুপ্রবেশেকারীদের দেশ ছাড়তেই হবে: রাজনাথ সিং।

দেশের রাজনীতি এখন আসামের NRC নিয়ে উঠালপাথাল হয়ে উঠেছে। NRC রিপোর্টে যেই মাত্র অবৈধ অনুপ্রবেশকারীদের নাম এসেছে সেই মাত্র কংগ্রেস, TMC, বামপন্থী, সমাজবাদী পার্টি, বহুজন সমাজবাদী পার্টি সকলেই মোদী সরকারের উপর আক্রমণ কৰক শুরু করেছে। বিরোধীদের বক্তব্য মোদী সরকার সংখ্যালঘুদের নিশানা করে কাজ করছে। সাংসদে এই নিয়ে তৃণমূল কংগ্রেস থেকে শুরু করে কংগ্রেস সকলেই হাঙ্গামা শুরু করে দেয়। যার পর এই ইস্যুতে মুখ খোলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং। NRC এর উপর মন্তব্য করে উনি বলেন, যে যতই চেষ্টা করে নিক না কেন অবৈধ বাংলাদেশি ও রোহিঙ্গাদের যেতেই হবে। বিপক্ষের সমস্ত দলগুলিকে এককোনে করে রাজনাথ সিং বলেন, ভারত সরকার রোহিঙ্গা ইস্যুতে মায়ানমার সরকারের সাথে লাগাতার কথা বলছে।

উনি ফেব্রুয়ারি ২০১৮ তে জারি নির্দেশিকার উল্লেখ করে রাজ্য সরকারকে রোহিঙ্গাদের উপর নজরদারি রাখার অনুমতি দেন। রোহিঙ্গাদের গণনা করে কগজপত্র জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়ে বলেন, রোহিঙ্গারা কোনো শরণার্থী নয় বরং অণুপ্রবেশকারী। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, কেন্দ্র সরকার রোহিঙ্গা ইস্যুতে আডভাইজারি জারি করে দিয়েছে।

বিরোধী দলের সরকারের অভিযোগে উনি রোহিঙ্গাদের সংখ্যা ও অন্যান্য তথ্য কেন্দ্র সরকারের কাছে জমা দেন। এই ভিত্তিতেই সমস্ত তথ্য বিদেশমন্ত্রীকে জানানো হবে এবং বিদেশমন্ত্রী মায়ানমারে ডিপোর্ট করার ব্যাপারে কথা বলবেন। রাজনাথ সিংহ বলেন, রোহিঙ্গাদের চিহ্নিত করা আবশ্যক, বায়োমেট্রিক যাচাই এর মাধ্যমে রোহিঙ্গাদের চিহ্নিত করা সম্ভব।

কেন্দ্রীয় মন্ত্রী কিরণ রিজ্যু বলেন, রোহিঙ্গারা দেশের সুরক্ষার জন্য এক বাধা হয়ে রয়েছে। যে যতই তর্ক বিতর্ক করুক বা রোহিঙ্গা মুসলিমদের প্রতি সংবেদনা জানাম, আমাদের সরকার মনে করে রোহিঙ্গারা অনেক অবৈধ কাজে লিপ্ত। দেশের সুরক্ষার প্রশ্ন তৈরি হচ্ছে তাই এদেরকে পুশ ব্যাক করা হবে। এই কাজে দেরির প্রশ্নে রাজনাথ সিং বলেন, কিছু আইনের পালন করা প্রয়োজন, তবে আমি সদনের মাধ্যমে দেশকে আস্বস্ত করছি যে আমাদের সরকার রোহিঙ্গাদের দেশ থেকে বের করবে।