Press "Enter" to skip to content

কাজ শুরু করলেন নতুন প্রধান বিচারপতি! রোহিঙ্গাদের পিটিশন খারিজ করে দেশের পক্ষে রায় দিলেন।

দেশের নতুন রঞ্জন গগৈই তার কার্যকাল শুরু করে দিয়েছেন। উনি কাল CJI পদে নিজের কার্য শুরু করেছেন। উনার প্রথম রায় দেশের পক্ষে দিয়েছেন যা একটা শুভ সংকেত। সেই ৪ বিচারকদের মধ্যে ছিলেন যার তৎকালীন প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্র এর বিরুদ্ধে প্রেস কনফারেন্স করতে এসেছিলেন। রঞ্জন গগৈয়ের পিতা কংগ্রেসের বড়ো নেতা ছিলেন এবং টুকরো টুকরো গ্যাং এর সাথে এনাকে জোড়া হতো। এই কারণে রঞ্জন গগৈয়ের CJI হওয়ার পর নান প্রশ্ন উঠেছিল। কেমন প্রধান বিচারপতি হবেন এই নিয়ে অনেকের মনে প্রশ্ন ছিল। কিন্তু উনি একটা ভালো শুরু করেছেন। আসলে কেন্দ্র সরকার কিছু রোহিঙ্গাকে মায়ানমারে ডিপোর্ট করার জন্য মায়ানমার বর্ডারে পাঠিয়েছিল।

কেন্দ্র সরকারের নির্দেশ অনুযায়ী রোহিঙ্গাদের ধরা হয়েছিল এবং ডিপোর্ট করার জন্য মায়ানমার বর্ডারে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। এই সমস্ত রোহিঙ্গারা মায়ানমার থেকে ভারতে প্রবেশ করেছিল। কেন্দ্র সরকারের এই সিদ্ধান্তের পর কংগ্রেরসের ঘনিষ্ট উকিল প্রশান্ত ভূষণ সুপ্রিম কোর্টের সামনে আর্জেন্ট পিটিশন দায়ের করে। প্রশান্ত ভূষণ দাবি জানায় সরকারের সিদ্ধান্তের উপর যেন লাগাম লাগানো হয় এবং কোনো রোহিঙ্গা মুসলিমকে ডিপোর্ট না করা হয়।

এবার কোর্ট কি সিধান্ত নেবে তাই নিয়ে সকলের চিন্তা ছিল। রঞ্জন গগৈ হয় নিজে এই ব্যাপারে বিচার করতে পারতেন নতুবা অন্য কারোর কাছে এই মামলা পাঠিয়ে দিতে পারতেন। কিন্তু গগৈ একটা ভালো পদক্ষেপ নিয়ে প্রশান্ত ভূষণের পিটিশনকে খারিজ করে দেন। যার জন্য এবার আবার রোহিঙ্গাদের ডিপোর্ট করার কাজ শুরু হয়ে গিয়েছে। যা নিয়ে প্রচন্ড ত্রুদ্ধ রয়েছে কংগ্রেস ও কট্টরপন্থীরা। রঞ্জন গোগৈ প্রশান্ত ভূষণের পিটিশনের উপর ধমক দিয়ে বলেন, এটা কোনো আর্জেন্ট কেস নয় যে আর্জেন্ট রায় দিতে হবে, প্রশান্ত ভূষণ রোহিঙ্গা মুসলিমদের হয়ে পিটিশন দায়ের করা হয়েছিল যা খারিজ করে দেন।

কাল রঞ্জন গোগৈই দেশের পক্ষে একটা ভালো রায় দিয়ে শুরু কাজ শুরু করেছেন যা সমাজের জন্য একটা ভালো সংকেত। জানিয়ে দি, জাস্টিস দীপক মিশ্র এর অবসর নেওয়ার পর জাস্টিস রঞ্জন গোগৈই ৪৬ তম CJI হিসেবে শপদ নিয়েছেন। এখন রঞ্জন গোগৈয়ের কাছে রামমন্দির বিতর্ক মেটানোর মতো অনেক চ্যালেঞ্জ সামনে রয়েছে যার দ্বারা উনি বড়ো বড়ো ইতিহাস তৈরী করতে পারেন। রঞ্জন গগৈ এর বছর ৬৩ বছর যাকে রাষ্ট্রপতি শপদবাক্য পাঠ করিয়ে বিচার ব্যবস্থার সর্বোচ্চ মনসদে বসান।