Press "Enter" to skip to content

সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি হতে চলেছেন কংগ্রেসের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর ছেলে। রাম মন্দির নির্মাণ ইস্যু…

জাস্টিস সুপ্রিমকোর্ট এর প্রধান বিচারপতি হিসাবে শপথ নিতে চলেছেন আগামী ৩রা অক্টোবর। ইনি প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা কংগ্রেস নেতা কেশব চন্দ্র গগৈ এর একমাত্র পুত্র। ভারতীয় সংবিধানে নিয়ম রয়েছে, সেই নিয়ম অনুসারে প্রধান বিচারপতি যখন অবসর নিয়ে নেন তারপর সেই আসনে বসেন তার পরবর্তী সিনিয়র বিচারপতি। সেই কারনেই কেন্দ্রীয় আইন মন্ত্রেকের কাছে রঞ্জন গৈগৈ এর নামের সুপারিশ করতে চলেছেন বিচারপতি দিপক মিশ্রা - এর নাম। আপনাদের জানিয়ে রাখি, এই বছর কোনো নিয়মের তোয়াক্কা না করে ১২ ই জানুয়ারি যে চারজন বিচারপতি সব কিছু নিয়মের উরধে গিয়ে বলেছিলেন যে গণতন্ত্র বিপন্ন হয়েছে তাদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন এই জাস্টিস গগৈ। এই সময় সুপ্রিমকোর্টের প্রধান বিচারপতির এজলাসে চলছে বেশ কিছু মামলার শুনানি।

যার মধ্যে রয়েছে, রাম মন্দির সহ একাধিক স্পর্শকাতর মামলা। এমন পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে অনেকেই মনে করছেন যে এইসব মামলা প্রভাবিত হতে পারে। যদিও প্রধান বিচারপতি কাছে থেকে দেশবাসী নিরপেক্ষ ও ন্যায় সাপেক্ষে বিচার পাবেন বলে আশাবাদী দেশবাসী। জাস্টিস গৈগৈ ৩ অক্টোবর প্রধান বিচারপতি হিসেবে শপদ নেবেন।

২০১১ সালে জাস্টিস গৈগৈ পাঞ্জাব ও হরিয়ানার মুখ্য বিচারপতি পদে ছিলেন। ২০১২ থেকে জাস্টিস গৈগৈ সুপ্রিম কোর্টের জাজ ছিলেন। নভেম্বর ২০১৯ পর্যন্ত ইনি হিসেবে থাকবেন। চিফ জাস্টিস এর পর জাস্টিস গগৈ বরিষ্ঠতার দিকে সবথেকে বড়ো ছিলেন। এখন কংগ্রেসের সাথে উনার পিতা যুক্ত থাকায়(ছিলেন) কিছুজন রাম মন্দিরের ইস্যুর বাপরে প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছেন।

কারণ কংগ্রেস বরাবর রাম মন্দির গড়ে তোলার বিরুদ্ধেই ছিল। কংগ্রেস বহু বছর এককভাবে ক্ষমতায় থাকা সত্ত্বেও রাম মন্দির গড়ে তুলতে পারেনি এমিনকি রাম মন্দিরের বিরুদ্ধে লড়াই করতে কংগ্রেস নিজেদের উকিলকে নিযুক্ত করেছিল। তাই রাম মন্দির তৈরির ইস্যুতে আরো একবার প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। যদিও দেশের ন্যায় ব্যাবস্থার উপর প্রশ্ন উঠানো কোনভাবেই উচিত নয় বলে মনে করছেন বুদ্ধিজীবী মহল।

#অগ্নিপুত্র