Press "Enter" to skip to content

বেরিয়ে এলো চাঞ্চল্যকর তথ্য: হিন্দু সেজে এইভাবে ঘুরে বেড়াচ্ছে রোহিঙ্গা মুসলিমরা।

বহু বছর ধরে শরণার্থীদের তকমা দিয়ে অবৈধ রোহিঙ্গা মুসলিমদের দলে দলে দেশে ঢোকানো হয়েছে। আর এখন তার খারাপ প্রভাব হাত নাতে পাচ্ছে দেশবাসী। মাত্র কয়েকদিন আগেই রোহিঙ্গা ও জঙ্গিদের একত্রে কাজ করার প্রমান পাওয়া গেছে। এমনকি সঞ্জুয়ান সেনা ছাউনিতে যে জঙ্গি হামলা হয়েছিল সেখানেও যুক্ত ছিল রোহিঙ্গা মুসলিমরা।অর্থাৎ এতদিন ধরে কংগ্রেস মানবিকতা দেখিয়ে যে রোহিঙ্গা মুসলিমদের ভারতে থাকতে দিয়েছে তারাই এখন ভারতের সুরক্ষার পথে কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়েছে।সম্প্রতি রোহিঙ্গা মুসলিমদের নিয়ে আরো একটা খবর সামনে আসছে যা জানার পর আপনিও কেঁপে উঠবেন। আসলে খবর পাওয়া যাচ্ছে যে রোহিঙ্গা মুসলিমরা হিন্দু সাধু সেজে দেশে ঘুরে বেড়াচ্ছে। শুধু এই নয় এই রোহিঙ্গা মুসলিমরা সাধু বেশে একলা থাকা মহিলাদের ধর্ষণ করার চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ আসছে।

 

সম্প্রতি দিল্লিতে একটি ঘটনা সামনে এসেছে যেখানে ফিরোজ খান নামের এক রোহিঙ্গা মুসলিম ও তার সহকারীদের পাকড়াও করা হয়েছে। সচেতন স্থানীয়রা রোহিঙ্গা মুসলিমদের ধরে দিল্লি পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছে। যদিও দিল্লির কেজরিওয়াল সরকার ভোটবাঙ্কের খাতিরে রোহিঙ্গা মুসলিমদের তোষণ শুরু করেছে।ফিরোজ খান নামের ওই ব্যক্তি গেরুয়া বস্ত্র পরে এবং সম্পূর্ণভাবে হিন্দু সেজে ঘুরে বেড়াচ্ছিল। পরে স্থানীয়দের সন্দেহ হলে তাকে তার প্রমানপত্র দেখানোর জন্য বলে। সেখানেই জানা যায় যে সে মুসলিম ধর্মাবলীর লোক এবং হিন্দু সেজে ভণ্ডামি করছে।

এই রোহিঙ্গা মুসলিমরা সাধু সেজে অপরাধমূলক কাজ করার ধান্দায় ছিল। আপনাদের জানিয়ে দি, রোহিঙ্গা মুসলিমরা সাধু সেজে ঘুরে বেড়াচ্ছে কারণ সাধু সন্তদের উপর হিন্দু সমাজ ভরসা করে আর সেই ভরসাকে হাতিয়ার করে দেশের ক্ষতি রোহিঙ্গা মুসলিমরা। উল্লেখ্য ব্যাপার, এই ফিরোজ খানের মতো রোহিঙ্গা মুসলিমরা কোনো ধর্ষণ কান্ডে জড়িত হলে দালাল মিডিয়া প্রকাশ করবে যে হিন্দু সাধু ধর্ষণ করেছে। অর্থাৎ আসল সত্য গোপন করে হিন্দুদের বদনাম নাম করবে মিডিয়া।

কেন্দ্র সরকার এই রোহিঙ্গা মুসলিমদের দেশ থেকে বের করার জন্য প্রস্তুত হয়েগেছে কিন্তু কিছু রাজ্য এখনো এই রোহিঙ্গাদের ভোটব্যাঙ্ক হিসেবে ব্যবহার করার জন্য পুষে রাখতে চাইছে। জানলে অবাক হবেন দিল্লির কেজরিওয়াল সরকার এই রোহিঙ্গাদের জন্য প্রতি সপ্তাহে চাল, ডাল এমনকি আলো ও জলের ব্যাবস্থাও করে দিয়েছে। শুধু এই নয় কেজরিওয়ালের পার্টির এক নেতা রোহিঙ্গা মুসলিমদের সিটিজেনশিপ পর্যন্ত দিতে চাইছে।