Press "Enter" to skip to content

ভারতে অবৈধভাবে পাসপোর্ট তৈরি করে বাস করছে কট্টরপন্থী রোহিঙ্গা মুসলিমরা!

রোহিঙ্গা মুসলিমরা দেশের জন্য কতটা ক্ষতিকারক তা এখন আর কারোর কাছে থেকে লুকিয়ে নেই, এমনকি কেন্দ্র পর্যন্ত ভারত থেকে রোহিঙ্গাদের বের করার জন্যে আদালত থেকে নির্দেশ চেয়েছে।রোহিঙ্গাদের তারা সন্ত্রাসবাদীদের থেকে কোনো অংশে কম নয়। তাই কোনো দেশ তাদের ঢুকতে দেয় নি নিজের দেশে। এবার সেই রোহিঙ্গাদের আসল রুপ বেরিয়ে এল সবার সামনে। আবদুল খইর এবং মহম্মদ আয়ূব নামে দুই রোহিঙ্গা মুসলিমকে পরশু পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে।

হায়দ্রাবাদের বালাপুর এলাকা থেকে সেখানে তারা জালি নথিপত্র দিয়ে ভারতীয় পাসপোর্ট এবং আধার কার্ড সংগ্রহ করে বসবাস করছিল। তাদের কে মায়ানমার সরকার বার করে দেবার পর বাংলাদেশ হয়ে তারা ২০১৩ সালে বেআইনিভাবে ভারতবর্ষে ঢুকে পড়ে। তারপর তারা পাকাপাকি ভাবে হায়দ্রাবাদে বসবাস করে দেয়। পুলিশ সুত্রে জানা গিয়েছে যে আবদুল খইর ২০১৭ সালে ভুল নথিপত্র দিয়ে পাসপোর্ট বের করে তারপর অপরজন মহম্মদ আয়ূব কিছুদিন আগে আধার কার্ড জোগার করে তারপর তারা নিজেদের ভারতীয় বলে দাবি করতে থাকে। জানা গিয়েছে যে উদ্বাস্তু তকমা দিয়ে প্রায় ২০০০ থেকে ৩০০০ জন রোহিঙ্গা হায়দ্রাবাদ শহরের বিভিন্ন প্রান্তে বসবাস করছে। আসলে ভারতের কোন রাজ্যে এখন মোট কত রোহিঙ্গা মুসলিম ঢুকে বসে আছে তার কোনো সঠিক সংখ্যা রাজ্য সরকার বা কেন্দ্র সরকারের কাছে নেই।

আর এই ঘটনার পর আরো একটা বিষয় সামনে আসছে , যেভাবে ভুয়ো নথিপত্র সহ রোহিঙ্গারা ধরা পড়ছে তাতে মনে করা হচ্ছে রোহিঙ্গাদের ঢুকিয়ে ভারতের জনসংখ্যার অনুপাতকে পরিবর্তন করার এক বড়ো চক্রান্ত চলছে এবং ভারতকে হিন্দুদের সংখ্যা কমিয়ে মুসলিমসংখ্যাবহুল করার চেষ্টা চলছে। কারণ একজন রোহিঙ্গা মুলসিম তার সারা জীবনে কমপক্ষে ১০-১২ টি বাচ্চা নিয়ে থাকে যা পরবর্তীকালে ভারতীয়দের জন্য এক বড়ো বিপদ হয়ে দাঁড়াবে।
#অগ্নিপুত্র