Press "Enter" to skip to content

RBI এর সদস্য করলো বড়ো পর্দাফাঁস! ২০১৬ সালে নোটবন্দি না করলে বড়ো ক্ষতি হতো দেশের।

ভারতীয় রিজার্ভ বাঙ্কের নির্দেশক মন্ডলের সদস্য এস গুরুমুর্তি নিয়ে বড়ো মন্তব্য করেছেন। এস. গুরুমুর্তি বলেছেন ২০১৬ তে যদি না করা হতো তাহলে অর্থব্যাবস্থা ভেঙে পড়তো। উনি বলেন ৫০০ ও ১০০০ এর মত বড়ো মূল্যের নোট রিয়েল স্টেট এ ব্যাবহৃত হতো। উনি বলেছেন, নোটবন্দির ১৮ মাস আগে ৫০০ ও ১০০ টাকার নোট ৪.৮ লাখ কোটি টাকায় পৌঁছে গেছিলো। রিয়েল স্টেট ও সোনার কিনতে এই নোট ব্যাবহার হচ্ছিল। যদি না করা হতো তাহলে আমাদের অবস্থা ২০০৮ সালের সাবপ্রাইম ঋণ সংকটের মতো হয়ে যেত।

এতে ভারতের অর্থব্যবস্থা ভেঙে পড়তো। নোটবন্ধি ছিল একটা পজেটিভ উপায় যার মাধ্যমে এই সংকট আটকানো যেত। গুরুমুর্তি ের সংরক্ষিত ভান্ডারের নিয়ম পরিবর্তন নিয়ে দাবি তুলেছেন। উনি দেশের ছোট ও মাঝারি ব্যাবসায়ীদের লোন পক্রিয়া আরো সহজ করার কথা বলেছেন কারণ এটা ভারতের জিডিপির ৫০%। সোমবার

বোর্ডের যে বৈঠক হবে সেখানে নিয়মের সরলীকরণ, সংরক্ষণ ভান্ডারকে কম করা এবং MSME এর ঋণ বাড়ানোর উপর গুরুত্বপূর্ণ চর্চা হবে বলে উনি জানিয়েছেন। RBI এর মূলধন কাঠামোর উপরে মন্তব্য করে এস গুরুমুর্তি বলেন, RBI এর কাছে ২৭-২৮% সংরক্ষিত ভান্ডার থাকে।

উনি বলেন, আপনি এটা বলতে পারেন না যে অনেক সংরক্ষিত ভান্ডার আছে সেটা আমাদের দেওয়া হোক। এটা সরকারও বলছে না, সরকার একটা নীতি তৈরি করতে চাইছে। আমি মনে করি সরকার চাইছে কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কের কাছে কতো সংরক্ষিত থাকবে তার উপর একটা নিয়ম তৈরি করতে। বিশ্বের কোনো কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কের কাছে এত সংরক্ষণ ভান্ডার থাকে না যতটা RBI এর কাছে রয়েছে।