Press "Enter" to skip to content

১০ জন আদিবাসীর গণহত্যার ক্ষেত্রে অভিযুক্ত ব্যাক্তি বেরিয়ে এলো এক সমাজবাদী পার্টির নেতা।

উত্তরপ্রদেশের সোনভদ্র আরো একবার খবরের শিরোনাম উঠে এসেছে। সোনভদ্রতে জমি বিবাদ নিয়ে ১০ আদিবাসীকে হত্যা করে দেওয়ার ঘটনা সামনে এসেছিল। এই নরসংহার নিয়ে বহুজন উত্তরপ্রদেশের যোগী সরকারের উপর অভিযোগ তুলেছিল। সপা, বসপা সহ বিরোধীরা যোগী আদিত্যনাথের উপর লাগাতার আক্রমন করছিল। কিন্তু এখন মামলা পাল্টে যেতে শুরু হয়েছে। কারণ যোগী প্রশাসন মামলার তদন্ত করে ঘটনার মুখ্য অভিযুক্ত যোগদত্ত গুর্জরকে গ্রেফতার করেছে।

যোগদত্ত গুর্জরের গ্রেফতারির সাথে সাথে কিছু বড়ো তথ্যও সামনে চলে এসেছে। জানা যাচ্ছে, এই ব্যাক্তি অখিলেশ যাদবের পার্টির হয়ে কাজ করতো। অখিলেশ যাদবের সমাজবাদী পার্টির নির্বাচনী প্রচারের জন্য এই ব্যাক্তি কাজ করতো। সোনভদ্রতে যে গ্রামে গণহত্যা করা হয়েছে এবং ১০ জন আদিবাসীকে হত্যা করা হয়েছে সেই গ্রামের প্রধান ছিল যোগদত্ত গুর্জর। হত্যাকাণ্ডের শিকার হরিশঙ্কর নামের এক স্থানীয় ব্যাক্তি জানান, তাঁর কাকা ও কাকিমা ও ছোটো ছেলেকে গুলি করে দেওয়া হয়েছে।

হরিশঙ্কর জানিয়েছেন, যোগদত্ত গুর্জর এলাকায় অনকেদিন ধরে সমাজবাদী পার্টির হয়ে কাজ করছে। লোকসভায় সময়তেও এই ব্যাক্তি সমাজবাদী পার্টির হয়ে কাজ করেছিল এবং বিধানসভার সময়তেও অভিযুক্ত ব্যাক্তি সমাজবাদী পার্টির হয়ে কাজ করেছিল। সোনভদ্র মামলায় অখিলেশ যাদব মৌনব্রতে বসেছিল, এদিকে পুলিশ এই তথ্য বের করেছে যে অভিযুক্ত ব্যাক্তি সমাজবাদী পার্টির নেতা। যোগদত্ত গুর্জর একজন বড়ো গুন্ডা, সে প্রায় ২০০ জন কট্টরপন্থীকে ট্রাকে ভর্তি করে এনেছিল আদিবাসীদের উপর গুলি চালানোর জন্য।