Press "Enter" to skip to content

আর্যরা বাইরের নয়, ভারত আর্যদের দেশ এবং সকল ভারতীয় আর্য: জানালো বিজ্ঞানীরা।

হিন্দুদের মধ্যে ভেদাভেদ তৈরি করতে ও ের ভাঙন ধরিয়ে শাসন চালানোর জন্য ইংরেজরা , অনার্য নামের একটা ভুয়ো ধারণা মানুষের মনে তৈরি করেছিল। ইংরেজরা গায়ের রং এর ভিত্তিতে , অনার্য সিধান্তকে প্রমাণিত করতে চেয়েছিল। আজও ভারতের ইতিহাস পাঠ্যপুস্তকে এই ভুল ধারণা শিশুদের শেখানো হয়। আসলে ভারতের আরেক নাম যেমন হিন্দুস্তান, এইভাবে ভারতের আরো একটা নাম ছিল আর্যবর্ত। সেই হিসেবে প্রত্যেক ভারতীয় নিজেকে বলার অধিকার রাখে। কিন্তু বিদেশী শক্তি এটাকে অনার্য ভাগ করে ভাঙন ধরিয়েছিল।ভারতের দেশপ্রেমী বিপ্লবীরা বলতেন বিদেশীরা দেশ ছাড়ো। সেটাকে পাল্টা জবাব দেওয়ার জন্য ইংরেজরা এটা বলতে শুরু করেছিল যে আর্যরাও বিদেশী, আর্যরা ভারতে আক্রমন করে প্রবেশ করেছে।

 

আর্য ও নন-আর্যদের নামে ভারতে প্রচুর রাজনীতি হয়েছে। দক্ষিণ ভারতের অনেক দলের রাজনীতি আর্যদের বিরোধিতার ইস্যুতে স্থির রয়েছে। তবে একটি নতুন গবেষণায় উঠে এসেছে যে ভারতের আদি বাসিন্দাদের উপর আর্যদের আগ্রাসনের তত্ত্বটি সম্পূর্ণ ভুল। সত্য কথাটি হ’ল সেই সময়ে ভারতের আদি বাসিন্দাদের উপর কোনও এই ধরনের আক্রমণ হয়নি। ভারতের সকলেই আর্য নামে পরিচিত ছিল এবং দেশের আরেক নাম ছিল আর্যবর্ত।

ভারতের জনগণের কিছু পূর্বপুরুষ ইরান ও তুর্কমেনিস্তানের মতো মধ্য প্রাচ্যের দেশগুলিতে গিয়েছিলেন। তারাই মানুষকে কৃষিকাজ এবং অন্যান্য বড় শিল্পের সাথে পরিচয় করিয়েছিলেন। গবেষণা আরও প্রকাশ করেছে যে অবিভক্ত ভারতের হরপ্পা বাসিন্দারা প্রায় সমস্ত দক্ষিণ এশিয়ার জাতির পূর্বপুরুষ। হরপ্পান সভ্যতার অন্যতম প্রধান শহর রাখিগারী নিয়ে গবেষণা শেষে এই প্রতিবেদনটি প্রকাশিত হয়েছে। হরিয়ানা, হরিসার রাখিগারী নিয়ে গবেষণা করা দলের পরিচালক অধ্যাপক বসন্ত শিন্ডের মতে, ভারতবর্ষে আর্য আক্রমণের গল্পটি সম্পূর্ণ মিথ্যা।

রাখিগড়ীতে দাফন করা লাশের কঙ্কালের ডিএনএ পরীক্ষার পরে জানা গেছে যে হরপ্পান ভারতীয় ভূখণ্ডে লোকেরাই সময়ের সাথে সাথে দক্ষিণ রাজ্যে ভ্রমণ করেছিলেন। এই কঙ্কালের ডিএনএ এবং আজকের দক্ষিণ ভারতীয় জনগণের ডিএনএ এটি প্রমাণ করে। শুধু তাই নয়, নেপাল, বাংলাদেশ, পাকিস্তান, আফগানিস্তান এবং শ্রীলঙ্কা পর্যন্ত দেশগুলির মানুষের ডিএনএ পরীক্ষায় দেখা যায় যে তারা সকলেই হরপ্পান সভ্যতার লোকদের বংশধর। অধ্যাপক বসন্ত শিন্ডের মতে, হরপ্পানরা ইরান ও তুর্কমেনিস্তান পর্যন্ত ভ্রমণ করেছিল এবং লোককে তাদের সভ্যতার সাথে পরিচয় করিয়ে দিয়েছিল। উভয় জায়গার বাসিন্দাদের ডিএনএর বৈজ্ঞানিক পরীক্ষা-নিরীক্ষার পরে এটি প্রকাশিত হয়েছে।

গবেষণা দলের আরেক পণ্ডিত ডঃ নীরজ রায় বলেছেন, হরপ্পানরা এতটাই দক্ষ ছিল যে তারা কৃষির শিল্প আবিষ্কার করেছিল। এছাড়া তারাই  ইরানী জনগণকে পশুপাখির শিল্প শিখিয়েছিলেন। যেখানে আজ অব্দি আবিষ্কারের ভিত্তিতে এটি বিশ্বাস করা হচ্ছিল যে হরপ্পানবাসী মধ্য প্রাচ্যের লোকদের কাছ থেকে কৃষিকাজ শিখেছে। তিনি বলেছিলেন যে হরপ্পানদের ঘর তৈরির কৌশলটি আজকের সবচেয়ে উন্নত বাড়ি-রাস্তা তৈরির স্টাইলের অনুরূপ। তাদের বাড়ীতে তিন থেকে চারটি কক্ষ থাকে যা বিভিন্ন উপায়ে বাথ হাউস, রান্নাঘর এবং স্টোরহাউস হিসাবে ব্যবহৃত হত।