Press "Enter" to skip to content

বিজেপির সাথ ছেড়ে কংগ্রেসের সাথে যুক্ত হতে গিয়ে শিবসেনা পেল বড়ো ঝটকা।

NDA তে যুক্ত শিবসেনার নেতারা প্রায় মোদী সরকারের উপর আক্রমণ করে। আসলে রাজনৈতিক স্বার্থের জন্য ের মতের সাথে মিল রেখে শিব সেনা বিজেপির সাথে অন্যরকম ব্যাবহার করতে শুরু করেছিল। ২০১৯ এর নির্বাচনে বিজেপির সাথ ছেড়ে একা নির্বাচন লড়ার জন্য সিধান্ত নিয়েছিল। অন্যদিকে সাংসদে অবিশ্বাস প্রস্তাবের উপরেও বিজেপিকে সমর্থন করেনি। অবশ্য অবিশ্বাস প্রস্তাবে বিরোধীদেরও সমর্থন করেনি এটাও সত্য। কিন্তু অবিশ্বাস প্রস্তাবে রাহুল গান্ধী সংসদে যে ভাষণ দিয়েছিল তার সমর্থন করেছিল উধাব ঠাকরে। যার পর থেকে কংগ্রেস ও শিবসেনার মধ্যে জোটের সম্ভাবনা লক্ষ করা যাচ্ছিল।

আপনাদের জানিয়ে রাখি ২০১৯ নির্বাচনে NDA তে বিজেপির সাথে যুক্ত হয়ে লড়াই করে শিবসেনা কিন্তু এখন তারা রাজনৈতিক লাভ উঠাতে পারছে না বলে কংগ্রেসের সাথে যুক্ত হওয়ার চিন্তা ভাবনা করছিল। যদিও আপাতত শিবসেনা এক লড়াই করার সিধান্ত ঘোষণা করেছে। তাই কংগ্রেসের সাথে শিবসেনা কবে জোটের কথা ঘোষণা করবে সেই নিয়ে রাজনীতি তুঙ্গে ছিল। কিন্তু এখন কংগ্রেস এমন পক্ষ নিয়েছে যাতে বড়ো ধাক্কা খেয়েছে শিব সেনা। আসলে কংগ্রেস শিবসেনার সাথে জোট করার সিধান্ত খারিজ করেছে।

এই খবর সামনে আসার সাথে সাথে শিবসেনার নেতাদের কথা বন্ধ হয়ে গিয়েছে। সূত্রের খবর কংগ্রেসের বড়ো নেতারা জানিয়েছে যে কংগ্রেস সেইসব পার্টির সাথে জোট করতে পারবে যাদের চিন্তাধারা কংগ্রেসের সাথে মিল খায়। কংগ্রেস ও শিবসেনার বিচারধারা আলাদা তাই এই দুই দলের জোট সম্ভব নয়। আপনাদের জানিয়ে রাখি, কংগ্রেস ও শিবসেনার সমঝোতার কথাবার্তা তখন সামনে এসেছিল যখন থেকে শিবসেনা সেনা কয়েকটি বিষয়ে রাহুল গান্ধী ও কংগ্রেসকে সমর্থন করেছিল।

দেশে মোদী ঝড় এর জন্য এখনো বিরোধী দলগুলি বিজেপির থেকে ভয় পেয়ে রয়েছে কারণ তারা এটা উপলদ্ধি করতে পারছে যে মোদী সরকারকে হাঁটানো এত সহজে যাবে না। অন্যদিকে যে শিবসেনা এতদিন মহারাষ্ট্রে বড়ো পার্টি হিসেবে উঠে আসছিল তারা এখন নিজেদের অস্তিত্বের জন্য সংগ্রাম করতে শুরু করেছে। কারণ এখন মহারাষ্টে যতগুলি নির্বাচন বা উপনির্বাচন হয়েছে তাতে প্রত্যেকটিতে বহুমত পেয়ে জয় লাভ করেছে। এই অবস্থাতে কংগ্রেরসে কাছে থেকে শিবসেনা এমন খবর পেলো যা তাদের কাছে দুঃস্বপ্নের থেকে কিছু কম নয়।