Press "Enter" to skip to content

PoK এর বালাকোটে জঙ্গি ঘাঁটি গুলোতে ধ্বংসলীলা চালিয়েছিল যেই মারক বোমা, এবার সেটার অ্যাডভান্স ভার্সন এলো ভারতের কাছে

ভারতীয় বায়ুসেনা বালাকোট এয়ার স্ট্রাইকে ক্ষমতার প্রদর্শন করেছিল। আর সেই সময় ভারতের এই হামলায় বায়ুসেনার হাতে ছিল ইজরায়েলের স্পাইস বোমা (SPICE)। এবার সেই স্পাইস বোমার অ্যাডভান্স ভার্সন ভারতের হাতে আসা শুরু হয়েছে। এই বোমা যেকোন প্রকারের বিল্ডিং আর ব্যাঙ্কারকে নিমিষেই গুঁড়িয়ে দিতে পারে। নিজের লক্ষ্যকে সঠিক ভাবে ভেদ করা এই স্পাইস বোমা ভারতীয় বায়ুসেনার সবথেকে ঘাতক বোমের যায়গা নিয়েছে।

স্পাইস এ মানে হল (SPICE) Smart, Precise Impact, Cost Effective। এই বোমা যেকোন প্রকার বাঙ্কার আর ঘরকে নিমিষেই ধ্বংস করতে পারে। এই বোমার মাধ্যমে সবথেকে সুরক্ষিত আস্তানাকেও নিমিষেই ধ্বংস করা যেতে পারে। SPICE-2000 শুধু একটি বোমাই না, এটি একটি গাইডেড কিটও। এই বোমা বেশি দূরত্বের লক্ষ্যকেও সঠিক ভাবে ধ্বংস করতে সক্ষম। লেজার গাইডেড থাকার কারণে, অনেক দূরে লক্ষ্য থাকলেও এই বোমা সঠিক যায়গায় গিয়ে আঘাত হানতে সক্ষম।

রাফাল ডিফেন্স সিস্টেম দ্বারা নির্মিত এই মারক বোমার ব্যাবহার ইজরায়েলের সাথে সাথে কয়েকটি অন্য দেশের বায়ুসেনাও করে। লক্ষ্য স্থান পরিবর্তন করলে, এই বোমা নিজে নিজেই আবার সেই লক্ষ্যের পিছনে লেগে পড়ে। আর এই বোমের মাথায় একটি ক্যামেরা লাগানো আছে, যেটা নিশানা ভেদ করার জন্য সাহায্য করে। স্পাইস ২০০ বোমা দুটি ভার্সনে পাওয়া যায়। একটি ১ হাজার কেজির, আরেকটি ৫০০ কেজির।

একটি চিপের মাধ্যমে এই বোমাতে টার্গেট সম্বন্ধিত ডাটা আপলোড করা হয়। এরপর এই বোমকে লড়াকু বিমানে ফিট করা হয়। এরপর বিমান যখন এই বোমাকে নিয়ে পূর্ব নির্ধারিত দূরত্ব আর উচ্চতায় পৌঁছে যায়, তখন এই স্মার্ট বোমাকে ফায়ার করা হয়। এরপর এই বোমায় থাকা অনবোর্ড কম্পিউটার এটিকে পূর্ব নির্ধারিত লক্ষ্যকে ভেদ করার জন্য এগিয়ে যায়। বোমার মাথায় লাগানো ক্যামেরা, কম্পিউটার দিয়ে নিয়ন্ত্রিত হয়।