সুরক্ষাকর্মী ছাড়াই, কাউকে না জানিয়ে কেন মায়ের কাছে পৌঁছালেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী!

দেশের প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদীজি ভারত মাতার সুপুত্র যিনি দেশকে পুনরায় বিশ্বগুরু করার পন নিয়েছেন। আর এই কারণে বহু বছর আগেই ঘর বাড়ি ত্যাগ করে দেশের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত করেছেন। সম্প্রতি মাননীয় নরেন্দ্র মোদীজি গত বৃহস্পতিবার সোমনাথ ট্রাস্টের একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে হাজির হয়েছিলেন। সেটি অনুষ্ঠিত হয়েছিল গান্ধীনগরে একটি রাজভবনে। এই বৈঠকটি শেষ হবার ঠিক পরেই তিনি কাউ কে কোনোরকম খবর না দিয়ে একেবারে অপ্রত্যাশিত ভাবে তার মা সাথে দেখা করার জন্য চলে যান। গান্ধীনগরে থাকেন উনার মা, সেখানেই হঠাৎ চলে যান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী৷ তবে এই ব্যাপারটি যতটা অপ্রত্যাশিত মনে হচ্ছে তার থেকেও অনেক বেশি পরিমানে অবাক করার মত। কারন তিনি যখন সেখানে যান তার সাথে ছিল না কোনোরকম নিরাপত্তা বাহিনী। তিনি একা একাই মায়ের সাথে দেখা করার জন্য সেখানে চলে যান। মা হীরাবেন মোদী সাথে সময় কাটান তিনি। আপনাদের জানিয়ে দি, মোদীজির মা ছোট ভাই পঙ্কজ মোদীর সাথেই থাকেন। প্রধানমন্ত্রী মোদী সেখানে বসে ১৫ মিনিট তাদের সাথে গল্প করেন।

উল্লেখ্য, গুজরাতের ভালসাদের জুজওয়া গ্রামে এক জনসভায় মোদীজি বক্তব্য রাখেন। সেই সময় তিনি বলেন যে, প্রধানমন্ত্রী আভাসযোজনার মাধ্যমে দেশের সমস্ত গরিব নাগরিকদের নিজের বাড়ি তৈরী করে দেবে সরকার। সেই লক্ষ্যে সরকার কাজ শুরু করে দিয়েছেন। ২০২২ সালে আমদের দেশে ৭৫ তম স্বাধীনতা দিবস পালন হবে। আর তার আগেই মোদীজি দেশের সমস্ত মানুষের জন্য নিজের বাড়ি করে দেবেন। তিনি এটাও বলেন যে সেই সমস্ত বাড়ি তৈরী করার জন্য এক টাকাও লাগবে না সমস্ত খরচায় বহন করবে সরকার। এবং সেই সমস্ত বড়ি গুলির উপকরণ গুলি হবে যথেষ্ট উন্নতমানের।

সেই সাথে তিনি আরও বলেন যে, তার জীবনে গুজরাতের অবদান অনস্বীকার্য। কিভাবে মানুষের পাশে গিয়ে তাদের জন্য কাজ করতে হয় সেই সব কিছু তিনি তার রাজ্য থেকেই শিখেছেন। কেমন করে নির্দিষ্ট সময়ে নিজের সপ্ন গুলিকে পূরন করতে হয় সেটাও তাকে তার রাজ্য শিখিয়েছে। তাই তিনি সেই আদর্শকে অনুকরণ করেই দেশের প্রত্যেক গরিব পরিবারকে নিজের বাড়ি করে দেওয়ার সপ্ন দেখাচ্ছেন।

প্রসঙ্গত আপনাদের জানিয়ে দি মোদী সরকার আবাস যজোনার উপর জোর দিয়ে বেশ দ্রুতগতিতে কাজ করে চলেছে। বিজেপি শাসিত রাজ্যগুলিতে কেন্দ্র ও রাজ্যের ভালো তালমেল থাকার জন্য কাজের গুণমান ভালোই হচ্ছে। বিজেপি না থাকা রাজ্যগুলির সাথেও কোনো রকম দুর্ব্যবহার করেনি কেন্দ্র। যদিও কেন্দ্রের কিছু কিছু প্রকল্প রাজ্য সরকার নিজেদের রাজ্যে লাগু করতে দিচ্ছে না যার জন্য দেশের প্রত্যেক এলাকা সমানভাবে উন্নত হচ্ছে না যাতে সংঘাত বাড়ছে রাজ্য ও কেন্দ্রের।

#অগ্নিপুত্র

you're currently offline

Open

Close