Press "Enter" to skip to content

বড় খবর: পরমাণু স্ট্রাইকে সক্ষম সুখই-৩০ কে মাঠে নামিয়ে দিল ভারত! চরম অস্বস্থিতে পাকিস্থান, বিরাম করার আবেদন ভারতের কাছে।

পাকিস্থান পুলবামা হামলার আগে ভাবতেই পারেনি যে পরিস্থিতি এতদূর এগিয়ে যাবে। পাকিস্থান এটাও বুঝতে পারেনি যে ভারত সরকার পাকিস্তানকে ধুলিসাৎ করার জন্য সবরকম প্রস্তুতি নিয়ে তৈরি রয়েছে। পাকিস্থান এটা ভেবেই পুলবামা হামলা করেছিল যে ভারতে কংগ্রেস এর মতোই কোনো সরকার আছে। ভারতের কংগ্রেস সরকার ২৬/১১ হামলার পর যেভাবে প্রমান দেওয়া নেওয়ার খেলা খেলেছিল, মোদীকে সরকারের থেকে তেমনটাই আশা করেছিল পাকিস্তান।

কিন্তু মোদী ১৫ ফেব্রুয়ারি ঘোষণা করে দিয়েছিলেন যে এবার আতঙ্কবাদীরা ও তাদের পোষণকারীরা বড় ভুল করে দিয়েছে। এরপর সরকার পাকিস্থানের আর্থিক কোমর ভেঙে দিয়েছে এবং তারপর মিরাজ বিমান নিয়ে পাকিস্তানের উপর স্ট্রাইক করে দিয়েছে যার পর প্রায় যুদ্ধের মতো পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে।পাকিস্থানের কাছে যে দুটি সবথেকে উন্নত ফাইটার জেট আছে তা হলো f-16 এবং JF-17, এই দুটি জেটের মধ্যে f-16 আমেরিকা থেকে কিনেছিল পাকিস্তান এবং JF-17 পেয়েছিল চীনের থেকে। কিন্তু ভারত ২ দিনের মধ্যে পাকিস্তানের দুটিJF-17 এবং একটা f-16 ভেঙে গুঁড়িয়ে দিয়েছে।

এখন পাকিস্থানের অবস্থা এমন যে জেটে জ্বালানি দেওয়ার মতো অবস্থাও তাদের নেই।পাকিস্থান এটা অনুমান করতেই পারেনি যে ভারত সরাসরি এয়ারফোর্স নামিয়ে দেবে। এখন ভারত যা পদক্ষেপ নিয়েছে তাতে পাকিস্থান চাপে পড়ে আলোচনা পথে আসার জন্য অনুরোধ করেছে। জানিয়ে দি কোনো ফাইটার জেট উড়ানোর আগে সেটাতে অস্ত্রশস্ত্র দিয়ে পরিপূর্ণ করতে হয় যাতে শত্রুপক্ষের ক্ষতি করা যায়। আর এখন ভারত পরমাণু আক্রমণে সক্ষম সুখই 30 MKI নিযুক্ত করে দিয়েছে।

এই কারনে পাকিস্থানের মধ্যে হাহাকার সৃষ্টি হয়েছে এবং পাকিস্থান, মিডিয়ার মাধ্যম  ভারতের সাথে আলোচনা করার আবেদন রেখেছে। ভারত যাতে আক্রমণের গতি তীব্র না করে তার জন্যেও অনুরোধ করা হয়েছে। সুখই 30এর কোনো জবাব পাকিস্থানের কাছে নেই। বিশ্বের সবথেকে এডভান্স জেটের সারিতে এই সুখই 30 আসে। ভারত সুখই 30 কে নিযুক্ত করে বড় ইঙ্গিত দিয়ে দিয়েছে। এখন যদি ভারত পাকিস্থানের সর্বনাশ করা শুরু করে দেয় তবে পাকিস্থান আর পাল্টা বার্তা দেওয়ার স্থিতিতেও থাকবে না।

6 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.