Press "Enter" to skip to content

জগন্নাথ মন্দিরের পবিত্রতা ও হিন্দু আস্থা বজায় রাখা নিয়ে বড়ো রায় সুপ্রিম কোর্টের। সরকারকে কড়া নির্দেশ আদালতের।

হিন্দু মন্দিরের প্রাথমিক নিয়ম এটাই যে মন্দিরে আপনাকে পবিত্রতা বজায় রাখতে হবে। পবিত্রতার খেয়াল রেখে কোনো ব্যক্তি কখনো জুতো, চটি পরে মন্দিরে প্রবেশ করতে পারবে না। অন্যথা মন্দিরের অপমান করা হবে। কিন্তু কংগ্রেস ও বামপন্থীরা দেশভাগের পর থেকে এমন ধর্মনিরপেক্ষতা চালিয়েছে যে অন্য ধর্মের ধর্মস্থানে কারোর প্রবেশের সাহস না থাকলেও মন্দিরে যে যা খুশি করে ঢুকে পড়তে পারে। তবে আজ পুরীর পবিত্র নিয়ে একটা প্রশংসনীয় রায় দিয়েছে যার চর্চা তুঙ্গে রয়েছে। আদেশ দিয়েছে যেকোনো প্রকারে মন্দিরের পবিত্রতা বজায় রাখতে হবে। আজ সরকারকে আদেশ দিয়েছে যাতে কেউ জুতো পরে বা অস্ত্র নিয়ে মন্দিরে প্রবেশ করতে না পারে সেই দিকে কড়া চোখে খেয়াল রাখে। তাতে সেটা যদি সুরক্ষাকর্মী তথা পুলিশও হয়, তাকেও জুতো খুলে মন্দিরে প্রবেশ করতে হবে।

একই সাথে কেউ অস্ত্র বা হাতিয়ার নিয়েও মন্দিরে প্রবেশ করতে পারবে না। বিগত দিনে জগন্নাথ মন্দিরে ভিড় নিয়ে একটা সমস্যা হয়েছিল যারপর কিছু পুলিশ নিয়মভঙ্গ করে মন্দিরে প্রবেশ করেছিল। যারপর কিছু সচেতন হিন্দু প্রতিবাদ জানিয়েছিল। তৎপর আজ সুপ্রিম কোর্ট এই আদেশ দিয়েছে। জানিয়ে দি জগন্নাথ মন্দিরের প্রশাসনিক দায়িত্ব উড়িষ্যার সরকারের উপর রয়েছে। আজ সুপ্রিম কোর্ট উড়িষ্যার সরকারকে নোটিশ জারি করেছে এবং বিগত দিনে মন্দিরে জুতো পরে প্রবেশকে কেন্দ্র করে জবাব চেয়েছে।

সুপ্রিম কোর্টের এই সিদ্ধান্ত আজ স্বাগত ও প্রশংসা করার মতো। এবার সরকারকে এই দিকে নজর দিতে হবে যে কেউ জুতো পরে মন্দিরে প্রবেশ করে পবিত্রতা নষ্ট করছে কিনা। সুরক্ষা কমর্মীরাও যাতে কোনোভাবে নিজের শক্তির সুযোগ উঠিয়ে মন্দিরের পবিত্রতা নষ্ট না করে সেই দিকে অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে সরকারকে। সুপ্রিম কোর্টের নতুন প্রধান বিচারপতি পদে চিফ জাস্টিস রঞ্জন গগৈ নিযুক্ত হওয়ার পর থেকে এই নিয়ে দুটি বড়ো ও প্রশংসনীয় সিধান্ত সামনে এলো।

কয়েকদিন আগেই রোহিঙ্গারা যাতে ভারতে থাকতে পাই এবং মোদী সরকার যেন রোহিঙ্গাদের না বের করে তার জন্য কংগ্রেসের ঘনিষ্ঠ এক উকিল ে পিটিশন জারি করেছিল। সেই পিটিশন সরাসরি খারিজ করে কংগ্রেসের মুখে ঝামা ঘষে দিয়েছিল এবং আজ আরো একবার বড়ো রায় দিয়ে হিন্দুদের আস্থার সম্মান রেখেছে

পাঠকদের জন্য প্রশ্ন: সুপ্রিম কোর্টের এই রায়ের ব্যাপারে আপনাদের কি মতামত?