Press "Enter" to skip to content

বড় ধাক্কা পেল হিন্দু সমাজ! দীর্ঘ অপেক্ষার পর মাত্র ৩০ সেকেন্ড শুনানি করে রাম মন্দির মামলা পিছিয়ে দিল সুপ্রিম কোর্ট।

আরো একবার বড় ধাক্কা খেল হিন্দু সমাজ, ধৰ্মনিরপেক্ষ ভারতে সংখ্যাগরিষ্ঠ হিন্দু সম্প্রদায়ের আস্থাকে আরো একবার ঝটকা দিলো সুপ্রিম কোর্ট। মাত্র ২ দিন আগেই সবারিমালার নিয়ম ভঙ্গ করে হিন্দুদের ধৰ্ম নিয়ে খেলা করেছে বামপন্থী ও কট্টরপন্থীরা। আর আজ আবার হিন্দু আস্থাকে গুরুত্বহীনভাবে ধাক্কা দিল সুপ্রিম কোর্ট। আসলে আজ সুপ্রিম কোর্টে ের উপর শুনানির তারিখ ছিল। কিন্তু সুপ্রিম কোর্ট শুনানি দিতে গিয়ে সেই একই কাজ করেছে যা বিগত এত বছর ধরে করে আসছে। সুপ্রিম কোর্ট মাত্র ৩০ সেকেন্ড এর মাথায় ের ইস্যুকে আরো পিছিয়ে দেয়। চিফ গেস্ট রঞ্জন গগৈ ের শুনানি ১০ তারিখ অবধি পিছিয়ে দেন। ১০ তারিখ শুনানি শোনানো হবে এটাও নয়, বরং ১০ তারিখ একটা বেঞ্চ গঠন হবে, সেই বেঞ্চ ঠিক করবে যে পরিবর্তি শুনানি কবে হবে।

অর্থাৎ এক কথায় বছরের পর বছর এই শুনানি ঝুলিয়ে রাখার মারাত্মক পরিকল্পনা করে ফেলেছে। আগের তারিখে শুনানির সময় রঞ্জন গগৈ এই মামলাকে তুলনামূলক কম গুরুত্বপূর্ণ বলে দাবি করেছিল। সুপ্রিম কোর্ট জঙ্গিদের জন্য মধ্যরাতে দরজা খুলতে রাজি হলেও হিন্দুদের আস্থার জন্য সময় দিতে রাজি নয় বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে হিন্দুত্ববাদী ও রাষ্ট্রবাদীরা।

জানিয়ে দি, রাম মন্দির নিয়ে মামলা প্রায় সমাপ্ত হয়েই রয়েছে, আদালতে এটা সিদ্ধ করা সম্পন্ন হয়েছে যে রাম মন্দির ভেঙে বাবরি মসজিদ তৈরি করেছিল বিদেশী অনুপ্রবেশকারীরা। হিন্দুদের জমিতে বাবর এসে উৎপাত করেছিল এবং মন্দির ভেঙে মসজিদ তৈরি করেছিল। এর সোজা হিসেব ওই স্থানের উপর হিন্দু সমাজ ব্যাতিত আর কারোর অধিকার থাকতে পারে না।

কিন্তু দেশের সুপ্রিম কোর্ট বার বার তারিখের পর তারিখ দিয়ে শুনানির পিছিয়ে যাচ্ছে এবং ধৰ্মনিরপেক্ষতার আড়ালে হিন্দুদের ধর্য্যের পরীক্ষা নিতে শুরু করেছে। সুপ্রিম কোর্টের এই শুনানির উপর কোনো রাজনৈতিক দলের প্রভাব আছে কিনা সেই নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে। যদিও সুপ্রিম কোর্টের বিচার নিয়ে প্রশ্ন তোলা উচিত নয় বলে মত বুদ্ধিজীবীদের।

7 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.