Press "Enter" to skip to content

বিজেপি পার্টি অফিসে হামলা করলো গুন্ডাবাহিনী, ব্যাপক ভাঙচুর, লুটপাট! মুখ্য অভিযোগ মমতা ব্যানার্জীর দিকে।

লোকসভা নির্বাচনের ঠিক আগে দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি লাগাতার পরিবর্তন হয়ে চলেছে। এবার রাজনৈতিক ঘটনার কেন্দ্রবিন্দু হয়ে দাঁড়িয়েছে CBI সংস্থা। রবিবার CBI এর একটা টিম কলকাতা পৌঁছেছিল রাজীব কুমার নামক এক পুলিশ কমিশনারের উপর তদন্ত করার জন্য। কিন্তু মমতার পুলিশ উল্টে CBI আধিকারিকদের আটক করে। কলকাতার CBI দপ্তরকেও ঘিরে ফেলেছিল পুলিশ। এরপর কেন্দ্র CRPF নামলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। কেন্দ্রীয় সংস্থার রক্ষার জন্য CRPF নামানোর ঘটনা ইতিহাসে এই প্রথম, এমনকি কাশ্মীরেও কেন্দ্রকে এমন কড়া পদক্ষেপ কখনো নিতে হয় না।

ের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী CBI তদন্তের বিরুদ্ধে নেমে ধর্নায় বসে গেছে। ধর্না স্থলে বসেই মমতা ব্যানার্জী রাজ্যের কাজের উপর লক্ষ রাখছেন। মমতার ব্যানার্জীর সাথে সাথে কিছু পুলিশ আধিকারিরাও ধর্নায় বসেছেন তা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে, পুলিশ কি পার্টির সদস্য হয়ে গেছে! এমন প্রশ্ন তুলেছে বহুজন। ঘটনাকে কেন্দ্র করে লাগাতার উত্তেজনা বেড়েই চলেছে। রাজ্যে রাষ্ট্রপতি শাসন লাগু হতে পারে বলেও আশঙ্কা করছে অনেকে।

অন্যদিকে TMC কার্যকর্তারা রাজ্যজুড়ে উৎপাত শুরু করে দিয়েছে। সকালে রাজ্যের বিভিন্ন স্থানে রেল আটক, সড়ক অবরোধের পর এখন বিজেপির কার্যালয়ের উপর আক্রমন শুরু করেছে। কলকাতার ভবানীপুরে বিজেপির যে পার্টি অফিস রয়েছে সেখান TMC এর লোকজন গিয়ে ভাঙচুর চালিয়েছে বলে মিডিয়া সূত্রে খবর পাওয়া যাচ্ছে। অবশ্য বাংলার মিডিয়া এই খবর চেপে যাওয়ার চেষ্টা করছে। খবর অনুযায়ী, TMC এর লোকজন ভবানীপুরের বিজেপি পার্টি অফিসে গুন্দাগিরি করে ভাঙচুর চালিয়েছে। পার্টি অফিসের চেয়ার টেবিল ভেঙে ফেলা হয়েছে। বিজেপি পার্টির ব্যানার, পতাকা,ছবি, পোষ্টার ছিঁড়ে ফেলা হয়েছে বলে অভিযোগ সামনে এসেছে।

রাজ্যের আইন শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে বলে দাবি বিজেপি কার্যকর্তাদের। রাজ্যে রাষ্ট্রপতি শাসনের দাবি জানিয়েছে তারা। যদিও বাংলার মিডিয়া খবর লাগাতার চেপে যাচ্ছে বলেও অভিযোগ উঠেছে। যেখানে CBI এর মত কেন্দ্রীয় সংস্থা সুরক্ষিত নয়, সেখান বাংলার মানুষ কিভাবে সুরক্ষা পাবেন তাই নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে বিজেপি। দক্ষিণ কলকাতার ভবানীপুরের প্রতিনিধিত্ব মমতা ব্যানার্জী নিজে করেন এমত অবস্থায় ওই স্থানের আইন শৃঙ্খলা ভেঙে পড়া স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন খাঁড়া করছে রাজনৈতিক মহলে।

9 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.