Press "Enter" to skip to content

ক্যানিংয়ে তৃণমূলের শওকাত মোল্লার দলবলের আক্রমনে গুরুতর আহত বিজেপি নেতা দিলীপ বিশ্বাস! হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে লড়ছে পাঞ্জা।

রাজনীতি নিয়ে হিংসার ক্ষেত্রে পশ্চিমবঙ্গ এখন সবথেকে বেশি এগিয়ে। পশ্চিমবঙ্গের থেকে বড়ো বড়ো রাজ্যগুলিতে রাজনৈতিক হিংসার পরিচয় নেই, কিন্তু পশ্চিমবঙ্গে রাজনৈতিক হিংসা চরমে। প্রায় ৫ দিন অন্তর অন্তর পশ্চিমবঙ্গে রাজনৈতিক হিংসার ঘটনা ঘটে। খুনো খুনি রক্তপাত পশ্চিমবঙ্গে খুবই সাধারণ ঘটনা হয়ে উঠেছে। জানিয়ে দি, পশ্চিমবঙ্গ সেই রাজ্য যেখানে রোহিঙ্গা মুসলিমদের খোলাখুলি স্বাগত জানানো হয়েছিল। রোহিঙ্গাদের ঠাঁই দেওয়া ক্যানিং থেকে একটা ঘটনা সামনে আসছে।

যেখানে শওকাত মোল্লার নেতৃত্বে বিজেপি নেতা দিলীপ বিশ্বাসের উপর আক্রমণ করা হয়েছে। শওকাত মোল্লা তার বিশাল দলবল নিয়ে বিজেপির উপর আক্রমণ করে। দিলীপ বিশ্বাস দক্ষিণ ২৪ পরগনার কানিং এর ৪ নাম্বার মন্ডল সভাপতি। শনিবার দিন দিলীপ বিশ্বাসের উপর তৃণমূলের কট্টরপন্থীরা আক্রমন করে হাত, পা ভেঙে দেয়। এর প্রতিবাদে সোমবার বিকেলে ৪ টেই ঘুরিয়ার শরীফে প্রতিবাদ মিছিল বের করা হয়। সেখানে শওকাত মোল্লার বিশাল বাহিনী বিজেপি নেতাদের উপর আক্রমণ করে। যাতে গুরুতর আহত হয়ে পড়ে বিজেপি কর্মকর্তার।

মন্ডল সভাপতি দিলীপ বিশ্বাস এর ফাটিয়ে রক্তাক্ত করে দেওয়া হয়। সহ সভাপতি সুদর্শন গোস্বামীর হাত, পা ভেঙে মাথা ফাটিয়ে দেওয়া হয়। দিলীপ বিশ্বাস এর অবস্থা খুবই গুরুতর, উনি এখন হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। একইসাথে সুদর্শন গোস্বামীর মাথাতেও গুরুতর আঘাত করেছে শওকাত মোল্লার দল। দিলীপ বিশ্বাস তার ১৫ থেকে ২০ জন কর্মীদের নিয়ে মিছিল বের করেছিল। সেখানে শওকাত মোল্লা ও TMC এর উপপ্রধান কাশেম সদ্দার তাদের ১০০ থেকে ১৫০ জন লোক নিয়ে এসে আক্রমন করে।

স্মরণ করিয়ে দি, ঘুরিয়ার শরীফ সেই এলাকা যেখানে স্থানীয় মুসলিমদের সহযোগিতায় রোহিঙ্গা মুসলিমদের থাকার ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়েছিল। রোহিঙ্গা মুসলিমরা শওকাত মোল্লার হয়ে কাজ করে বলে অনেকে অভিযোগ উঠিয়েছেন। এক বিজেপি কর্মী জানিয়েছেন, মন্ডল সভাপতি দিলীপ বিশ্বাসের অবস্থা খুবই খারাপ। তৃণমূলের কট্টরপন্থীদের আক্রমনের পর মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন দিলীপ বিশ্বাস।

you're currently offline