Press "Enter" to skip to content

কেরলের বন্যায় CPIM , কংগ্রেসকে খুঁজে না পাওয়া গেলেও উদ্ধারকাজে আরএসএস নামালো ২০,০০০ সয়ংসেবক।

বন্যায় বিপর্যস্ত মানুষের পাশে নেই মিশনারি বা ইসলামিক PFI সংগঠন

কেরল দক্ষিণ ভারতের একটা রাজ্য যা স্বাধীনতার পর থেকেই কংগ্রেস ও বামপন্থীদের হাতে রয়েছে। ইসলাম ও খ্রিষ্টানে ধর্মতন্তরণের উপদ্রব সম্ভবত এই রাজেই সবথেকে বেশি দেখা যায়। যেহেতু বামপন্থী ও কংগ্রেসিদের হাতে রাজ্যের ক্ষমতা ছিল তাই হিন্দু ধর্মের প্রতি কিভাবে অপপ্রচার করা হতো তার বহু উদাহরণ বছরের পর বছর ধরে বহুবার দেখা গেছে। পুরো দেশে যে বামপন্থী ও সেকুলার শক্তি ছড়িয়ে রয়েছে তার প্রাণকেন্দ্র কেরালা রাজ্য। এই রাজ্যের মিশনারি সংস্থাগুলি খুবই এক্টিভভাবে কাজ করে। শরীর অসুস্থ হয়েছে – যীশু আসবে, পারিবারিক অশান্তি চলছে যীশু আসছে, এইসব বলে হিন্দুদের ধর্মান্তনরের পক্রিয়া বহু বছর ধরে নিত্য ঘটনায় পরিণত হয়েছে। কেরালায় জিহাদি সংগঠনগুলির ব্যাপকভাবে নিজেদের শিকড় মজবুত করে নিয়েছে। কিছু জায়গায় তো জিহাদি ক্যাম্প খোলাখুলি চলে যার জন্য লাভ জিহাদ ও গোহত্যার মতো কুকর্ম চরমে থাকে। এখনে PFI এর মত ইসলামিক সংগঠনও রয়েছে। এর মধ্যে কেরালায় কখনো কংগ্রেস তো কখনো সিপিআইএম এইভাবে শাসন ক্ষমতা হস্তান্তরিত বিয়ে থাকে।

উদ্ধারকাজে নামলো কুড়ি হাজার সয়ংসেবক

এখন কেরলে প্রকান্ড প্রলয় নেমে এসেছে, বন্যায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে বহু জেলার মানুষ। ভারতীয় সেনা ও NDRF এর টিম উদ্ধার কাজে নেমে পড়েছে। সেনা ও NDRF এর পর যদি কেউ জনগণের উদ্ধারকাজে নেমেছে তারা হলো আরএসএস () এর সয়ংসেবকরা। আরএসএস () তাদের ২০,০০০ সয়ংসেবককে উদ্ধার কাজে কেরালায় নামিয়েছে। এমনকি এই উদ্ধার কাজ চলাকালীন আরএসএস () এর এক স্বয়ংসেবক প্রাণ হারিয়েছে। কেরলে PFI এর কার্যকর্তাদের খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ জনগণকে উদ্ধারের কাজে একটাও PFI কে দেখা যাচ্ছে না।

কংগ্রেসে কার্যকর্তারাও কেরালা থেকে এখন বিলীন হয়ে গেছে। ‘কংগ্রেস সেবা দল’ নামক সংগঠনকে কেরালার কোনো জেলায় খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। সিপিআইএম এর পুরো ক্যাডার এখন কেরল থেকে উধাও হয়ে গেছে। এখন যদি জনগণের কেউ ভসরা তারা সেনা, NDRF এছাড়াও RSS (আরএসএস) এর সয়ংসেবকরা। কেরালার মানুষদের বাঁচানোর জন্য এখন না আসছে কোনো মিশনারি সংগঠন, না তাদের যীশু, না ইসলামিক কট্টরপন্থী PFI এর লোকেরা, না আসছে কংগ্রেস ও সিপিআইএমের কার্যকর্তারা। এখন বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে তো সেনা, NDRF ও আরএসএসের কুড়ি হাজার(২০,০০০) সয়ংসেবক।

তবে কংগ্রেস হোক বা সিপিআইএম বা মিশনারি সংস্থা এদের সকল কার্যকর্তাদের এখন একটা জায়গায় দেখা যাচ্ছে সেটা হলো সোশ্যাল মিডিয়া । যেখানে এরা বিজেপি, মোদী ও আরএসএস এর দুর্নাম করতে ব্যাস্ত রয়েছে। প্রসঙ্গত, আপনাদের জানিয়ে ডি, শাহরুখ ও আমিরের মতো অভিনেতারা যারা নিজেদেরকে মহা সেকুলার বলে পরিচয় দেয় এবং পাকিস্থানে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ লোকেদের জন্য কোটি কোটি টাকা দান করার জন্য ব্যাস্ত হয় তাদেরকেও এখন আর খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।