Press "Enter" to skip to content

সুনীল সিং এর সাথে তৃণমূলের আরেক বিধায়ক আজ যোগ দিতে চলেছেন বিজেপিতে

আজ শুধু নোয়াপাড়ার বিধায়ক সুনীল সিংই নন তৃণমূলের আরেক বিধায়কও যোগ দিতে চলেছেন গেরুয়া শিবিরে। এর সাথে সাথে বনগাঁ পুরসভা এবং গারুলিয়া পুরসভাও তৃণমূলের হাত ছেড়ে বিজেপিতে ভীরতে চলেছে। তৃণমূল বিধায়ক সুনীল সিং গারুলিয়া পুরসভার চেয়ারম্যান। তিনি গারুলিয়া পুরসভার ১২ জন কাউন্সিলরকে নিয়ে দিল্লীতে গেছেন বিজেপিতে যোগ দেওয়ার জন্য। আরেকদিকে বনগাঁ বিধানসভার তৃণমূলের বিধায়ক বিশ্বজিৎ দাসও আজ বিজেপিতে যোগদান করছেন। প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী, বনগাঁ বিধানসভার বিধায়ক বিশ্বজিৎ দাস বনগাঁ পুরসভার ১৪ জন কাউন্সিলর এবং ১৫ জন পঞ্চায়েত সদস্যকে নিয়ে দিল্লীতে পাড়ি দিয়েছেন। আজ এরা সবাই বিজেপিতে যোগ দেবেন।

বেশ কয়েকদিন ধরেই বনগাঁ পুরসভা চর্চার বিষয় হয়ে উঠেছিল। কারণ ওই পুরসভার চেয়ারম্যান শঙ্কর আঢ্যের বিরুদ্ধে দলেরই কাউন্সিলরেরা অনাস্থা প্রস্তাব আনেন। দলের কাউন্সিলরের অভিযোগ অনুযায়ী, চেয়ারম্যান শঙ্কর আঢ্য জনসংযোগ এর যায়গায় নিজের প্রতিপত্তি বাড়িয়ে চলেছেন। কাজের কাজ কিছুই করছেন না। আর এর জন্যই দলেরই কাউন্সিলর ওনার বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব এনেছিল।

এই ব্যাপারে বনগাঁ জেলার তৃণমূল পর্যবেক্ষক নির্মল ঘোষ বলেন, ‘যাঁরা যাচ্ছেন, যান। কিন্তু, মনে রাখবেন, তাঁরা মানুষের ভোটে জিতেছিলেন এবং সেটা তৃণমূলের প্রতীকেই। এটা বিশ্বাসঘাতকতা।” তৃণমূল নেতৃত্ব অভিযোগ করে বলেন, বিধায়ক বিশ্বজিৎ দাসের মতো তৃণমূলের অনেক নেতা, বিধায়কেরা গত লোকসভা ভোটে বিজেপির হয়ে কাজ করেছিল। তাঁরা দলে থেকে গদ্দারি করেছে।

আরেকদিকে বিজেপির নেতৃত্বের বক্তব্য অনুযায়ী, লোকসভা ভোটের পর তৃণমূল দল যেমন ভাবে ভাঙছে, খুব শীঘ্রই দলটা সাইন বোর্ডে পরিণত হবে। এরাজ্যে তৃণমূলের ঝাণ্ডা ধরার জন্য আর কেউ থাকবে না।